বন্ধ রি-রোলিং কারখানাগুলো চালুর দাবিতে বিক্ষোভ

বন্ধ রি-রোলিং কারখানাগুলো চালুর দাবিতে বিক্ষোভ

বন্ধ রি-রোলিং কারখানাগুলো চালু, বন্ধকালীন সময়ে শ্রমিকদের আইনানুগ মজুরি প্রদান, নিয়োগপত্র-পরিচয়পত্র প্রদান ও সরকার ঘোষিত মজুরি কাঠামো বাস্তবায়নের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে শ্রমিকদের এক বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়।

গতকাল (৯ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১ টায় রি-রোলিং স্টিল মিলস শ্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে এ শ্রমিক সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

রি-রোলিং স্টিল মিলস্ শ্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ইমাম হোসেন খোকনের সভাপতিত্বে শ্রমিক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব বুলবুল, রি-রোলিং স্টিল মিলস্ শ্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম খান বিপ্লব, শ্যামপুর-কদমতলী শিল্পাঞ্চলের সহ-সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম, নারায়ণগঞ্জ জেলার সহ-সভাপতি গোলাম মোস্তফা, ফতুল্লা শিল্পাঞ্চল শাখার সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানী।

নেতৃবৃন্দ বলেন, শ্যামপুর-কদমতলী, ফতুল্লা শিল্পাঞ্চলের অর্ধ শতাধিক রি-রোলিং কারখানা ব্যবসায়িক কারণে বন্ধ। বন্ধ কারকানায় মজুরি না পাওয়ায় হাজার হাজার শ্রমিক পরিবার পরিজন নিয়ে অনাহারে-অর্ধাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছে। রি-রোলিং কারখানায় নিয়োগপত্র পরিচয়পত্র না থাকায় শ্রমিকরা আইনের আশ্রয় নিতে পারছে না।

নেতৃবৃন্দ বলেন, রি-রোলিং কারখানার মালিকের কোনরকম আইনের তোয়াক্কা করে না। কলকারখানা পরিদর্শন অধিদপ্তরকে লিখিত অভিযোগ দিলেও তারা কার্যকর পদক্ষেপ নেননি। কারখানাগুলোতে সরকার ঘোষিত মজুরি কাঠামোরও কোন বাস্তবায়ন হয়নি। এ অবস্থায় সরকারের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ যথাযথ ভূমিকা না নিলে এ অঞ্চলের রি-রোলিং কারখানার হাজার হাজার স্থায়ী বেকার হয়ে পড়বে।

নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে কারখানাগুলো চালু এবং বন্ধকালীন সময়ে শ্রমিকদের আইনানুগ মজুরি প্রদানের দাবি জানান।