২৮ দিন জেলযাপনের পর পাঁচ শর্তে জামিনে রিয়া চক্রবর্তী

গ্রেপ্তার হওয়ার ২৮ দিন পর জামিন পেলেন অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তী। বুধবার বম্বে হাইকোর্ট তাঁর জামিন মঞ্জুর করেছে। তবে একাধিক শর্ত আরোপ করা হয়েছে অভিনেত্রীর উপর। তাই জামিন পেলেও আপাতত আদালতের শর্তগুলি মেনে চলতে হবে তাঁকে। রিয়া ছাড়া পেলেও ভাই শৌভিক চক্রবর্তীর জামিন মঞ্জুর করেনি বম্বে হাইকোর্ট।

তদন্তও এখনও সম্পূর্ণ হয়নি। তাই জেল থেকে ছাড়া পেয়ে রিয়া যাতে কোনও সাক্ষীর সঙ্গে সাক্ষাৎ না করেন, সে কথা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে আদালত। আদালতের অনুমতি ছাড়া রিয়া বিদেশযাত্রা করতে পারবেন না বলেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তার জন্য পাসপোর্ট জমা রাখতে বলা হয়েছে তাঁকে। এমনকি মুম্বইয়ের বাইরে পা রাখার আগেও থানার অনুমতি নিতে হবে রিয়াকে।

আদালত জানায় অতীতে রিয়ার কোনও ক্রিমিনাল রেকর্ড নেই। সুতরাং ছাড়া পাওয়ার পরেও কোনও তথ্যপ্রমাণ নয়-ছয় করার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না।

আদালতে রিয়ার জামিন মঞ্জুর হলে অভিনেত্রীর আইনজীবী সতীশ মানশিন্ডে বলেন, ‘‘আদালতের সিদ্ধান্তে খুশি আমরা। সত্যের জয় হয়েছে। প্রকৃত ঘটনাবলীকেই মেনে নিয়েছে আদালত। আইন মেনেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিচারপতি সারং ভি কোতোয়াল।’’

উল্লেখ্য, গত ১৪ জুন বান্দ্রার বাড়ি থেকে বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিংহ রাজপুতের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। শুরুতে মুম্বাই পুলিশের হাতেই তদন্তভার ছিল। প্রাথমিক তদন্তে তারা জানায়, অবসাদ থেকে আত্মহত্যা করেছেন অভিনেতা। তারপর সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তদন্তভার হাতে নেয় সিবিআই।

পরবর্তীতে অভিনেতার মৃত্যুতে মাদকের অভিযোগ উঠে এলে, সেটি খতিয়ে দেখার দায়িত্ব পড়ে নার্কোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরোর উপর। রিয়ার বিরুদ্ধে সুশান্তের টাকা নয়ছয় করার অভিযোগ খতিয়ে দেখছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)।

এসব অভিযোগে গত ৮ সেপ্টেম্বর রিয়াকে গ্রেফতার করে এনসিবি। একাধিক জেরায় রিয়া দাবি করেন, সুশান্তের জন্য মাদক কিনলেও তিনি নিজে তা কোনওদিন গ্রহণ করেননি। যদিও কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাটির দাবি, রিয়া বড় একটি মাদক চক্রের সক্রিয় সদস্য। রিয়ার অভিযোগ মাদকের প্রমাণ অনেক বাড়িয়ে দেখানো হচ্ছে। অভিনেত্রীকে জেরা করতে গিয়ে উঠে এসেছে দীপিকা পাড়ুকোন, শ্রদ্ধা কপূর সহ বেশ কিছু অভিনেত্রীর নাম। এই মুহূর্তে তাঁরা প্রত্যেকেই এনসিবির আতসকাচের নীচে।