১২ দফা দাবিতে বাসদ(মার্কবাদী)-র প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ

করোনায় দুর্দশাগ্রস্ত গরীব-মধ্যবিত্তের জন্য রেশনব্যবস্থা চালু ও লাগামহীন দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ, নারী-শিশু ধর্ষণকারীদের দ্রুত বিচার, দুর্নীতি-লুটপাট বন্ধ করতে আয়ের সাথে সঙ্গতিহীন সম্পদ বাজেয়াপ্ত, শ্রমিক ছাঁটাই-বেতন কর্তন বন্ধ, রাষ্ট্রীয় পাটকল চালু, চাষীদের ফসলের লাভজনক মূল্য নিশ্চিত করতে রাষ্ট্রীয় ক্রয় বাড়ানো, রাষ্ট্রীয় বাহিনী কর্তৃক ক্রসফায়ার-গুম-নির্যাতন বন্ধ, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নিপীড়নমূলক ধারা বাতিল, করোনাকালে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ফি মওকুফসহ ১২ দফা দাবিতে বাসদ(মার্কসবাদী)-র উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

কেন্দ্রঘোষিত ‘দাবি মাস’ কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ (১ নভেম্বর) রবিবার ঢাকায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এবং সারাদেশে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ করা হয়েছে। এ উপলক্ষে ঢাকায় আজ সকাল ১১.৩০টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

কেন্দ্রীয় নেতা ফখরুদ্দিন কবির আতিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জহিরুল ইসলাম, নাঈমা খালেদ মনিকা, মাসুদ রানা, জয়দীপ ভট্টাচার্য প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশের পর একটি মিছিল পল্টন-গুলিস্তান এলাকা প্রদক্ষিণ করে। দলের পক্ষ থেকে একটি প্রতিনিধিদল শেরেবাংলা নগরস্থ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপি হস্তান্তর করেন।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, ”করোনা ভাইরাসে দেশের মানুষের জীবন-জীবিকা আজ বিপর্যস্ত। সংক্রমণ মোকাবেলায় ব্যর্থ সরকার জনগণকে ভাগ্যের হাতে ছেড়ে দিয়েছে, যারা মরার মরবে ও যারা বাঁচার বাঁচবে। ঢাকা-চট্টগ্রামের মতো প্রধান শহরেই বেশিরভাগ হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সাপ্লাই-এর মতো প্রাথমিক জীবনরক্ষাকারী ব্যবস্থা নেই, আইসিইউ-এর জন্য হাহাকার তৈরি হয়েছে। দুই মাস লকডাউনেই দেশের বেশিরভাগ পরিবার অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছে, অর্থাৎ কাজ বন্ধ থাকলে অল্প কিছুদিন চলবার মতো সঞ্চয় নেই বেশিরভাগ মানুষের। করোনাজনিত অর্থনৈতিক মন্দার অজুহাতে ছাঁটাই-বেতন কর্তন চলছে, বেকারত্ব ও দারিদ্র্য বাড়ছে। প্রবাসীরা অনেকে কাজ হারিয়ে দেশে ফিরে আসছেন। আওয়ামী লীগ সরকার ২৫টি রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধ করে দিয়ে ৬০ হাজার শ্রমিককে এক ধাক্কায় বেকার করে দিয়েছে, পাটচাষীদের ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। লাগামহীন দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, ভুতুড়ে বিদ্যুৎবিলের বোঝা, বর্ধিত পানির বিল-গাড়িভাড়ায় মানুষ দিশাহারা। অর্থনৈতিক সংকটে ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমজীবী মানুষ-কৃষক-নিম্নবিত্তকে সহায়তা দেয়ার পরিবর্তে সরকার প্রধানত শিল্পপতি-ব্যবসায়ীদের আর্থিক প্রণোদনা দিচ্ছে। এই মহামারীর সময়েও যে লাগামহীন দুর্নীতি-প্রতারণা ও জালিয়াতি হতে পারে, সেই নজির স্থাপিত হয়েছে বাংলাদেশে। আওয়ামী লীগ সরকার সমালোচনাকারীদের দমনে গ্রেপ্তার-নিপীড়ন চালাচ্ছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গত ২ বছরে হাজারের বেশি মামলা হয়েছে, দেড় হাজারের বেশি মানুষকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কক্সবাজারে পুলিশের গুলিতে মেজর সিন্হার মৃত্যু, মাদক দমনের নামে শুধুমাত্র ওই জেলায় ‘ক্রসফায়ারে’ দুই শতাধিক মানুষ হত্যা এসব ঘটনায় উঠে এসেছে– এদেশে সরকার ও রাষ্ট্রীয় বাহিনীর হাতে মানুষের জীবন কতটা নিরাপত্তাহীন। বেআইনী আটক, গুম, হয়রানিমূলক মামলা, পুলিশী হেফাজতে নির্যাতন, মিথ্যা স্বীকারোক্তি আদায়, সভা-সমাবেশে বাধাদান– এসব চলছেই।”

সমাবেশে বক্তারা আরো বলেন, ”অর্থনৈতিক সংকট থেকে জনগণকে রক্ষা করতে চাই রাষ্ট্রীয় দায়িত্বে সবার জন্য স্বাস্থ্য-শিক্ষা-আবাসন-কর্মসংস্থান। মূল্যবৃদ্ধির রোধ করতে দরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের রেশনব্যবস্থা প্রবর্তন, যা আশির দশক পর্যন্ত এদেশে সীমিত আকারে কার্যকর ছিল। শ্রমিকদের অধিকার রক্ষায় চাই মানসম্মত ন্যূনতম জাতীয় মজুরি প্রবর্তন, সর্বস্তরে ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার ও সরকারী-বেসরকারী নির্বিশেষে সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালু করা। কৃষকদের উৎপাদিত ফসলের লাভজনক মূল্য নিশ্চিত করতে রাষ্ট্রীয় ক্রয় বহুগুণ বাড়িয়ে ধাপে ধাপে খাদ্যশস্যের রাষ্ট্রীয় বাণিজ্য চালু করতে হবে। সেইসাথে কৃষি উপকরণে পর্যাপ্ত ভর্তুকি দিয়ে স্বল্পমূল্যে সরবরাহ করতে হবে, কৃষকদের মহাজনী ও এনজিও ঋণের শোষণ থেকে রক্ষা করতে সরকারীভাবে স্বল্প সুদে কৃষিঋণ বাড়ানো ও শস্যবীমা চালু করতে হবে। দুর্নীতিবাজ-কালো টাকার মালিক-ব্যাংক লুটেরা-ঋণখেলাপীদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা বন্ধ করা এবং আয়ের সাথে সঙ্গতিবিহীন সকল সম্পদ বাজেয়াপ্ত করতে হবে। ক্রমবর্ধমান নারী-শিশু নির্যাতন ও ধর্ষণ বন্ধে দোষীদের দ্রুত বিচার করা, অভিযোগকারীর হয়রানি বন্ধ করা, মাদক-পর্নোগ্রাফি-নারীকে ভোগ্যপণ্যরূপে উপস্থাপন কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করা এবং পরিবারে-সমাজে নারীর সমঅধিকার ও মর্যাদা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা ও ভূমির অধিকার নিশ্চিত করা দরকার। পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে অঘোষিত সেনাশাসন অবিলম্বে অবসান করা জরুরি।”

নেতৃবৃন্দ বলেন, ”জনগণের জীবন ও জীবিকার ন্যূনতম অধিকার নিশ্চিত করতে চাই জনকল্যাণমূলক রাষ্ট্র, গণমুখী প্রশাসন ও গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা। কিন্তু ভোটডাকাতির মাধ্যমে ক্ষমতায় আসা আওয়ামী লীগ সরকার দেশে স্বৈরাচারী, দুর্নীতিগ্রস্ত ও গণবিরোধী শাসন কায়েম করেছে। জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা ও গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা রক্ষার লক্ষ্যে অনির্বাচিত আওয়ামী লীগ সরকার অবিলম্বে পদত্যাগ করে সবার কাছে গ্রহণযোগ্য একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে।”

নেতৃবৃন্দ জনগণের জীবন, জীবিকা ও গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষায় স্বৈরাচারী সরকারের বিরুদ্ধে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ১২ দফা আশু দাবির ভিত্তিতে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।