সিলেট-সুনামগঞ্জকে বন্যাদুর্গত এলাকা ঘোষণার দাবি বাম জোটের

সিলেট-সুনামগঞ্জসহ গুরুতর বন্যাকবলিত জেলাকে বন্যাদুর্গত এলাকা ঘোষণা করা, পদ্মা সেতু উদ্বোধন উৎসব বন্ধ করে বন্যার্তদের পর্যাপ্ত ত্রাণ, চিকিৎসা ও পূনর্বাসনের ব্যবস্থা করার দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে বাম গণতান্ত্রিক জোট।

আজ (২৪ জুন), শুক্রবার বিকাল ৪.৩০টায় বাম গণতান্ত্রিক জোটের সারাদেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকার পল্টন মোড়ে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির সমাবেশে এসব দাবি জানানো হয়।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জোটের সমন্বয়ক ও ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক কমরেড আবদুস সাত্তার। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সিপিবির সভাপতি কমরেড শাহ আলম, বাসদের সাধারণ সম্পাদক বজলুর রশিদ ফিরোজ, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোশরেফা মিশু, বাসদ (মার্কসবাদী)’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী ফোরামের সমন্বয়ক মাসুদ রানা, বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টি (মার্কসবাদী)’র বিধান দাস ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের নির্বাহী সভাপতি কমরেড আব্দুল আলী প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন, ইউসিএলবি’র নজরুল ইসলাম।

সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, বন্যায় যখন মানুষ সহায় সম্বল হারিয়ে না খেয়ে মারা যাচ্ছে তখন সরকার তাদের পাশে না দাঁড়িয়ে অতি ব্যয়ে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজন করছে। এটা জনগণের সাথে নির্মম তামাশা ছাড়া কিছুই নয়।

নেতৃবৃন্দ অপ্রয়োজনীয় উৎসব বন্ধ করে বন্যা কবলিত মানুষের খাদ্য চিকিৎসা পুনর্বাসনের জন্য এই টাকা ব্যয় করার দাবি জানান। সরকারের অপ্রতুল নাম মাত্র ত্রাণ তৎপরতা আর অসত্য কথন মানুষকে আরও বিপদের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

নেতৃবৃন্দ বন্যা কবলিত এলাকাকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা করে সর্বাত্মক ত্রাণ তৎপরতা, চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। একই সাথে বন্যা দুর্গত এলাকায় ব্যাংক ঋণ, এনজিও ঋণের সুদ মওকুফ ও কিস্তি আদায় আগামী অন্তত ছয় মাস বন্ধ রাখার জোর দাবি জানান। নেতৃবৃন্দ কৃষি পুনর্বাসন ও শিক্ষার্থীদের পুনর্বাসনে নগদ অর্থ বরাদ্দ করা এবং দুর্নীতি-দলীয়করণ মুক্ত ভাবে সকল সহায়তা প্রদানেরও দাবি জানান।

সমাবেশ শেষে একটি মিছিল ঢাকার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.