শিশু কিশোরদের টিকার প্রশ্নে হু’র অনুমোদনের অপেক্ষায় বাংলাদেশ

বাংলাদেশে ১৮ বছরের কম অর্থাৎ ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের জন্য করোনাভাইরাসের টিকা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে বাংলাদেশ বলে জানিয়েছে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিভাগ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ”যেহেতু আমরা সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দিচ্ছি, কাজেই ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সীদেরও টিকা দিবো। তবে তার আগে ডব্লিউএইচওর অনুমোদন নিবো।”

”এজন্য আমাদের টেকনিক্যাল কমিটির অনুমোদনও পেতে হবে। যার অপেক্ষায় আমরা আছি।” তিনি বলছেন।

বাংলাদেশে এখন ১৮ বছর ঊর্ধ্বে বয়সীদের টিকা দেয়া হচ্ছে।

আজ সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

ইতোমধ্যে কয়েকটি দেশে ১২ বছরের এবং তার ঊর্ধ্বে টিকা দেয়া হচ্ছে বলেও জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। জাহিদ মালেক বলেন, ‘২২টি দেশে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। কিন্তু ডব্লিউএইচও এখনো ফর্মালি অনুমোদন দেয়নি। এটা যে-যে দেশে দিচ্ছে তারা নিজেদের দেশে দিচ্ছে, নিজেদের মতো করে এবং নিজেদের আইন অনুযায়ী। আমরা ডব্লিউএইচ ‘র কাছে অলরেডি (ইতোমধ্যে) আবেদন করেছ। বলেছি, এ বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত আমাদেরকে দেয়ার জন্য। আমরা সিদ্ধান্ত পেলে তখন কার্যক্রম করতে পারবো, সে অপেক্ষায় এখন আমরা আছি।’

১৮ বছরের কম বয়সীদের কোন টিকা দেওয়া হবে জানতে চাইলে জাহিদ মালেক বলেন, ‘যে সমস্ত দেশে দেয়া হচ্ছে, ফাইজার এবং মর্ডানার টিকাটাই দেয়া হচ্ছে। যে সমস্ত টিকা ডব্লিউএইচও ১২ থেকে ১৭ বছরের বয়সী ছেলেমেয়েদেরকে দেয়ার অনুমতি দেবে, আমরা সেই টিকাগুলোই দেব।’

গতকাল একটি মিটিংয়ে স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। শিক্ষকদের পাশাপাশি অনেক শিক্ষার্থীকে টিকা দেওয়া হয়েছে। মেডিকেল কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদান করা হয়েছে। চলতি মাসে আড়াই কোটি টিকা পাওয়া যাবে। সারাদেশে বিভিন্ন পর্যায়ে এসব টিকা দেওয়া হবে বলেও জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.