রানা প্লাজা হত্যাকাণ্ডের বিচারহীন ৮ বছর; দ্রুত বিচার দাবি

রানা প্লাজা শ্রমিক হত্যাকাণ্ডের অষ্টম বর্ষপূর্তিতে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র অবিলম্বে রানা প্লাজা ও তাজরিনসহ সকল শ্রমিক হত্যাকাণ্ডের দ্রুত বিচার দাবি করেছে।

আজ (২৪ এপ্রিল) দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে দিবসটি পালিত হয়েছে।

সকাল ৯টায় সাভারে রানা প্লাজার সামনে অবস্থিত স্মৃতিস্তম্ভ এবং জুরাইন কবরস্থানে নিহত শ্রমিকদের কবরে পুষ্পমাল্য অর্পণ এবং সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এদিকে সকাল ৯টায় জুরাইন কবরস্থানেও নিহত শ্রমিকদের কবরে পুষ্পমালা অর্পণ করা হয়। পরবর্তীতে এখানেও সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র ছাড়াও আরও অপরাপর শ্রমিক ও রাজনৈতিক সংগঠন রানা প্লাজা শ্রমিক হত্যাকাণ্ডের ৮ বছর পূর্তিতে বিভিন্ন দাবি-দাওয়াসহ কর্মসূচি পালন করেছে।

সকাল ৯টায় রানা প্লাজার সামনে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র’র পুষ্পমাল্য অর্পণ পরবর্তী সমাবেশে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার বলেন, হাজারো শ্রমিকের মৃত্যুর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিচার গত ৮ বছরেও সম্পন্ন হয়নি। এতগুলো বছর অতিক্রান্ত হলেও, কেন রানা প্লাজা শ্রমিক হত্যাকাণ্ডের বিচার হয়নি উল্টো গ্রেপ্তারকৃত মালিকসহ দায়ীদের মুক্তি দেয়া হয়েছে তার জবাব সরকারকে দিতে হবে। তিনি সরকারের পক্ষ থেকে দায়ী ব্যক্তিদের রক্ষা চেষ্টার নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে সকল দায়ীদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানান।

তিনি বলেন, একের পর এক শ্রমিক হত্যাকাণ্ডের বিচার না হওয়ায় ক্রমাগত ঘটনাগুলোর পুনরাবৃত্তি ঘটছে।

সাভারের রানা প্লাজার সামনে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন গার্মেন্ট শ্রমিক টিইউসি’র সহ-সভাপতি শ্রমিকনেতা ইদ্রিস আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক কে এম মিন্টু, কেন্দ্রীয় নেতা সাইফুল আল মামুন, লৎফর রহমান আকাশ, প্রকৌশলী রুহুল আমিন, এমদাদুল ইসলাম, মঞ্জুরুল ইসলাম, মো. নাসির এবং সিপিবি সাভার উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাজেদা বেগম সাজু প্রমুখ।

সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

সকাল ৯টায় জুরাইন কবরস্থানে নিহত শ্রমিকদের কবরে পুষ্পমালা অর্পণ করা হয়। এসময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সভাপতি অ্যাড. মন্টু ঘোষ বলেন, পঙ্গু হয়ে যাওয়া শ্রমিকদের জন্য স্থায়ী পুনর্বাসন করা খুব জরুরি হওয়া সত্ত্বেও সে ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ এখনও গ্রহণ করা হয়নি। তিনি আহত ও স্থায়ীভাবে অক্ষম শ্রমিকদের পুনর্বাসন ও সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করার দাবি জানান। তিনি রানা প্লাজার জায়গা অধিগ্রহণ করে তাদের স্থায়ীভাবে পুনর্বাসন করতে সে জায়গা ব্যবহার করার দাবি জানান।

তিনি বলেন চিকিৎসার অভাবে, অনাহারে-অর্ধাহারে অনেক আহত ও অক্ষম শ্রমিক মানবেতরভাবে দিনাতিপাত করছে।

শ্রমিকনেতা মন্টু ঘোষ আরও বলেন, চলমান করোনা পরিস্থিতিতে দেশের শ্রমিক ও শ্রমজীবী মানুষের উপর সীমাহীন জুলুম-নির্যাতন নেমে এসেছে। এই অবস্থায় সরকার খাদ্য, চিকিৎসা, চাকুরির নিরপত্তা নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হওয়ায় শ্রমজীবী মানুষ ভয়াবহ সংকটের মুখে পতিত হয়েছে।

জুরাইন কবরস্থানে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন গার্মেন্ট শ্রমিক টিইউসি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, কোষাধ্যক্ষ এম এ শাহীন, কেন্দ্রীয় নেতা দুলাল সাহা, মঞ্জুর মঈন প্রমুখ। এ সময় বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের পক্ষে বিমল কান্তি দাশ, সাইফুল ইসলাম সমীর ও ইকবাল হোসেন এর নেতৃত্বে নিহত শ্রমিকদের কবরে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।

রানা প্লাজা দিবসের কর্মসূচি থেকে বাঁশখালীতে ৭ শ্রমিক হত্যাকাণ্ডের দ্রুত বিচার এবং করোনা পরিস্থিতিতে শ্রমজীবী মানুষের উপর জুলুম-নির্যাতন বন্ধ করে খাদ্য, স্বাস্থ্য ও চাকুরির নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয়।

একইসাথে ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা দিবসে সমগ্র গার্মেন্ট শিল্পে সাধারণ ছুটি ঘোষণা, রানা প্লাজার জমি অধিগ্রহণ করে স্থায়ীভাবে অক্ষম শ্রমিকদের পুর্নবাসন এবং নিহত-আহত-নিখোঁজ শ্রমিকদের যথাযথ ক্ষতিপূরণ ও আহতদের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছে গার্মেন্ট শ্রমিক টিইউসি।

এছাড়াও আজ সকালে সাভার রানা প্লাজা শহীদ বেদীতে বিশ্ব ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশনের পক্ষ থেকে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.