বুরকিনা ফাসোয় সাম্প্রতিক সময়ে ভয়াবহ হামলা; নিহত ১৩২

বুরকিনো ফাসোতে সাম্প্রতিক সময়ে সবচেয়ে বড় সশস্ত্র হামলা সংঘটিত হয়েছে। দেশটির উত্তরাঞ্চলে সংঘটিত এ ভয়াবহ হামলায় অন্তত ১৩২ ব্যক্তি হত্যার শিকার হয়েছেন।

আজ (০৬ জুন) রোববার বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সোলহান গ্রামে ওই হামলার সময় স্থানীয় বাড়িঘর এবং বাজারে আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়। এই হামলার জন্য কোন দল দায়িত্ব স্বীকার করেনি, তবে দেশটিতে এ ধরনের হামলা সাধারণত ইসলামপন্থী দলগুলো করে থাকে, বিশেষ করে সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোয়।

জাতিসংঘ প্রধান বলেছেন, এই ঘটনায় তিনি অত্যন্ত ক্ষুব্ধ হয়েছেন। ওই হামলার নিন্দা জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস।

বুরকিনা ফাসোর প্রেসিডেন্ট রোচ কাবোরে দেশে তিনদিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করেছেন। একটি টুইট বার্তায় তিনি বলছেন, ”অপশক্তির বিরুদ্ধে আমাদের সবার একত্রিত হয়ে রুখে দাঁড়াতে হবে।”

এর আগে গত শুক্রবার রাতে আরেকটি হামলায় সোলহান গ্রামের দেড়শ কিলোমিটার উত্তরে তাডার্য়াট গ্রামে ১৪ জন নিহত হয়েছে।

গত মাসেই বুরকিনা ফাসোর উত্তরাঞ্চলে একটি হামলায় ৩০ জন নিহত হন।

প্রতিবেশী দেশগুলোয় সশস্ত্র গ্রুপগুলো হামলা আর অপহরণের ঘটনায় দেশটি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

উল্লেখ্য, জঙ্গি হামলার জবাব দিতে গত মে মাসে বুরকিনা ফাসোর সেনাবাহিনী বড় আকারের একটি অভিযান শুরু করে। তা সত্ত্বেও নিরাপত্তা বাহিনীগুলো সহিংসতা ঠেকাতে হিমশিম খাচ্ছে। গত দুই বছরে দেশটির ১০ লাখের বেশি মানুষ ঘরবাড়ি হারিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.