বিশ্বের নবীনতম প্রজাতন্ত্র হিসেবে বার্বাডোজের যাত্রা শুরু

ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের বার্বাডোজ বিশ্বের নবীনতম প্রজাতন্ত্র হিসেবে যাত্রা শুরু করল। যুক্তরাজ্যের রানী এলিজাবেথকে সরিয়ে সেখানকার রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন ডেম স্যান্ড্রা মেসন।

সোমবার মধ্যরাতের পর থেকে রানী এলিজাবেথ আর সেখানকার রাষ্ট্রপ্রধান নন। সরে গেল ব্রিটেনের রাজকীয় পতাকাও। দেশটির ৫৫তম স্বাধীনতা দিবসে উঠল তাদের নিজস্ব পতাকা। রাজপরিবারের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গেছেন প্রিন্স চার্লস।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়।

বার্বাডোজের প্রথম প্রেসিডেন্ট ডেম স্যান্ড্রা মেসন এর আগে বার্বাডোজের গভর্নর জেনারেল ছিলেন। তিনি সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ও বিচারপতি এবং চারটি দেশের রাষ্ট্রদূত হিসাবেও কাজ করেছেন।

বার্বাডোজের প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, ”আমরা একজন নারীকে সর্বসম্মতভাবে দেশের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত করেছি। এ মুহূর্তে তার থেকে যোগ্য কোনো প্রার্থী পাওয়া সম্ভব নয়।”

প্রসঙ্গত, এর আগে মরিশাস ১৯৯২ সালে রানী এলিজাবেথকে রাষ্ট্রপ্রধানের পদ থেকে সরিয়ে দেয় এবং নিজেদের প্রজাতন্ত্র হিসাবে ঘোষণা করে।

বার্বাডোজ প্রজাতন্ত্র হলেও কমনওয়েলথ গোষ্ঠীভুক্ত দেশের মধ্যে থাকছে। মোট ৫৪টি দেশ এই গোষ্ঠীর সদস্য।

উল্লেখ্য, প্রায় চারশ বছর আগে ব্রিটিশ জাহাজ প্রথমে বার্বাডোজ পৌঁছায়। তারপর ব্রিটিশরা বার্বাডোজকে সুগার কলোনিতে পরিণত করে। আফ্রিকা থেকে মানুষকে জোর করে ধরে সেখানে নিয়ে যাওয়া হয় চাষ করার জন্য। এখন দেশের অধিকাংশ মানুষেরই মূল আফ্রিকায়।

একসময় বার্বাডোজকে ‘লিটল ইংল্যান্ড’ বলা হতো। দীর্ঘদিন ধরে এখানে বিতর্ক চলছিল, ব্রিজটাউনে ন্যাশনাল হিরোস স্কোয়ারে ব্রিটিশ অ্যাডমিরালের মূর্তি রাখা হবে না সরিয়ে দেয়া হবে, তা নিয়ে। দুইশ বছর ধরে মূর্তিটি সেখানে আছে।

সূত্র: ডিডব্লিউ বাংলা (অনলাইন)।

Leave a Reply

Your email address will not be published.