বিবৃতি- পাল্টা–বিবৃতি কাম্য নয়; মন্তব্য হাইকোর্টের

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চলমান ‘সর্বাত্মক লকডাউনে’ মুভমেন্ট পাস ও পরিচয়পত্র দেখানোর সূত্র ধরে চিকিৎসক, পুলিশ ও ম্যাজিস্ট্রেটের মধ্যে বাগ্‌বিতণ্ডার সূত্র ধরে দেওয়া বিবৃতি, পাল্টা–বিবৃতি কাম্য নয় বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট।

বিবৃতির বিষয়টি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে আজ (২০ এপ্রিল) মঙ্গলবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব কথা বলেন।

আদালত বলেছেন, ‘প্রজাতন্ত্রের সব সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীকে তাদের পেশাগত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে হবে। দেশের প্রতিটি নাগরিক করোনা মহামারিতে পর্যুদস্ত। যে কারণেই হোক, একটি ঘটনা (চিকিৎসকের সঙ্গে ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের বিতণ্ডা) ঘটে গেছে। কিছু পেশাজীবী সংগঠন এ ঘটনায় বিবৃতি দিয়েছে এবং এর পাল্টা বিবৃতিও দেওয়া হয়েছে। এটি কাম্য নয়।’

প্রসঙ্গত, গত রোববার এলিফ্যান্ট রোডে পুলিশের তল্লাশিতে আটকা পড়েন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সহযোগী অধ্যাপক। তখন তার সঙ্গে পুলিশ কর্মকর্তার তর্কাতর্কির একটি ভিডিও সোশাল মিডিয়ায় দ্রুতই ছড়িয়ে পড়ে।

এরপর সোমবার বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন এবং পুলিশ কর্মকর্তাদের সংগঠন বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের বিবৃতি আসে। পাল্টাপাল্টি বিবৃতিতে সংশ্লিষ্ট পুলিশ ও চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চাওয়া হয়।

পাল্টাপাল্টি বিবৃতি নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদন আজ আদালতের নজরে এনে স্বতঃপ্রণোদিত আদেশের আরজি জানান আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ। আইনজীবীকে উদ্দেশ করে আদালত বলেন, ‘এ বিষয় নিয়ে গতকাল এসেছিলেন। আপনি তো সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি নন।’

এ সময় ইউনুছ আলী আকন্দ বলেন, ‘আমার সন্তান ও আত্মীয়স্বজনের মধ্যেও চিকিৎসক রয়েছেন। আমার মেয়ে চিকিৎসক হিসেবে করোনা ওয়ার্ডে দায়িত্ব পালন করছেন। যে কারণে সংক্ষুব্ধ।’

আদালত বলেন, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিবৃতি, পাল্টা–বিবৃতি দেওয়া কাম্য নয়, অনভিপ্রেত। প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীর এমন আচরণ অনাকাঙ্ক্ষিত। তাঁদের কাছ থেকে সবাই দায়িত্বশীল আচরণ আশা করে।

ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন বলেন, ওই ঘটনা দুঃখজনক ও অপ্রত্যাশিত। করোনাভাইরাসের উদ্ভূত পরিস্থিতিতে উভয় পক্ষের উত্তেজনা প্রশমনে অ্যাটর্নি জেনারেলকে ভূমিকা রাখতে বলেন আদালত।

Leave a Reply

Your email address will not be published.