বাস ভাড়া বাড়ল ৬০ শতাংশ; অর্ধেক যাত্রী গণপরিবহনে

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় দেশে গণপরিবহনে চলাচল আবার সীমিত করার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। নির্দেশনা অনুযায়ী, দেশের সব গণপরিবহন অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে যাত্রী পরিবহন করবে। বাস ভাড়াও ৬০ শতাংশ বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

এ নির্দেশনা আজ (৩১ মার্চ) বুধবার থেকে কার্যকর হয়েছে।

অন্যদিকে গতকাল থেকেই অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে ট্রেন পরিচালনা শুরু করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

নির্দেশনা অনুযায়ী, আপাতত দুই সপ্তাহের জন্য এ সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে।

বিআরটিএর তথ্য অনুযায়ী, দূরপাল্লার রুটে বর্তমানে এক কিলোমিটারে ১ টাকা ৪২ পয়সা হারে ভাড়া আদায় করা হয়। আজ থেকে এর সঙ্গে যুক্ত হবে বর্ধিত ৬০ শতাংশ। এছাড়া দূরপাল্লার রুটে থাকা সড়ক ও সেতুর টোলও মোট ভাড়ার সঙ্গে যুক্ত হবে। ঢাকা ও এর আশপাশে মিনিবাসের প্রতি কিলোমিটারে স্বাভাবিক ভাড়া ১ টাকা ৬০ পয়সা। বড় বাসের ভাড়া প্রতি কিলোমিটারে ১ টাকা ৭০ পয়সা। মিনিবাসে সর্বনিম্ন ভাড়া ৫ টাকা ও বড় বাসে ৭ টাকা। আজ থেকে এর সঙ্গে ৬০ শতাংশ বাড়তি ভাড়া যোগ হবে।

এদিকে এখন থেকে প্রতিটি ট্রেনের মোট টিকিটের অর্ধেক বিক্রি করা হবে। এর মধ্যে ২৫ ভাগ টিকিট কাউন্টারে এবং ২৫ ভাগ অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রি করা হবে বলে জানা যায়।

এদিকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গত বছর সারা দেশে অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে বাস চলাচল করলেও এবার সেভাবে গণপরিবহন চালানোর সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। কারণ গত বছর যখন এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল, তখন সরকারি ও বেসরকারি অফিস-আদালত বন্ধ ছিল। যাত্রী ছিল সীমিত। এ বছর অফিস-আদালত পুরোদমে চলছে। পাশাপাশি যাত্রী চলাচলও রয়েছে স্বাভাবিক। এ অবস্থায় অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে গণপরিবহন চালানোর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন নিয়ে সংশয় রয়ে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গত সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ১৮ দফা নির্দেশনা দেয়া হয়। এর মধ্যে ৪ নম্বর নির্দেশনা ছিল, গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে এবং ধারণক্ষমতার ৫০ ভাগের অধিক যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। এমন নির্দেশনার পর সোমবার বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কার্যালয়ে গিয়ে অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে যাত্রী পরিবহনের জন্য বাস ভাড়া আগের মতো ৬০ শতাংশ বাড়ানোর দাবি করেন পরিবহন মালিকরা।

শেয়ার করুন

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

Leave a Reply