বানভাসিদের উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতায় সরকারের উদাসীনতা, বাম জোটের নিন্দা

সিলেট-সুনামগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বানভাসি মানুষকে উদ্ধার তৎপরতা ও ত্রাণ কার্যক্রমে সরকারের উদাসীনতা, বন্যাকবলিত মানুষকে উদ্ধারে সরকার প্রশাসনের সমন্বয়হীনতায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতৃবৃন্দ।

১৯ জুন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বাম গণতান্ত্রিক জোটের কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের এক সভা থেকে এসব কথা বলা হয়।

সভা থেকে আরও বলা হয়, সিলেট, সুনামগঞ্জে দ্বিতীয় দফা বন্যায়ও সরকারের আগাম কোনো সতর্কবার্তা প্রদান করতে পারেনি যা চরম দায়িত্বহীনতার পরিচয় বহন করে।

সভায় সরকার বন্যাপীড়িতদের পর্যাপ্ত ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনায় মনোযোগ না দিয়ে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের উৎসব ডামাডোলে মশগুল থাকা এবং কোটি কোটি টাকা খরচেরও তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে। বাম জোট পদ্মা সেতু উদ্বোধনের নামে বিলাসিতা না করে সেই অর্থ বন্যার্তদের জন্য খাদ্য, পানি বিশুদ্ধকরণ ঔষধ, খাবার পানি, ঔষধ ও চিকিৎসায় ব্যয় করার দাবি জানান।

বাম জোটের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক কমরেড আব্দুস সাত্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন সিপিবি সভাপতি কমরেড মোহাম্মদ শাহ্ আলম, বাসদ সাধারণ সম্পাদক কমরেড বজলুর রশিদ ফিরোজ, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোশরেফা মিশু, বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টি (মার্কসবাদী)’র সাধারণ সম্পাদক কমরেড ইকবাল কবির জাহিদ, বাসদ (মার্কসবাদী) সমন্বয়ক কমরেড মাসুদ রানা, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের নির্বাহী সভাপতি কমরেড আব্দুল আলী, বাসদ-এর সহকারী সাধারণ সম্পাদক কমরেড রাজেকুজ্জামান রতন, ইউসিএলবি’র সম্পাদক কমরেড মোশারফ হোসেন নান্নু, সিপিবি কেন্দ্রীয় সদস্য আব্দুল্লাহ কাফী রতন, বিধান দাস, সীমা দত্ত, রুবেল সিকদার প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.