বন্যার্তদের পুনর্বাসনের দাবিতে ক্ষেতমজুর সমিতির বিক্ষোভ

‘বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা হয়নি। বন্যার সময় ত্রাণ, চিকিৎসা কোন কিছুই সরকারের কাছ থেকে সাধারণ মানুষ পায়নি। সরকার শুধু মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে সময় পার করছে’।

গত (২৯ জুলাই) সুনামগঞ্জ জেলার মধ্যনগর উপজেলায় ক্ষেতমজুর আন্দোলন সমন্বয় কমিটি আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডা. ফজলুর রহমান এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, গরিব মানুষের নামে বরাদ্দ দলীয় নেতা-কর্মী ও প্রশাসনের লোকজন লুটপাট করে। গরিব মানুষকে ঘুষ ছাড়া সামাজিক নিরাপত্তার নামে যে সুযোগ পাওয়ার কথা তা তারা পান না। তিনি লুটপাটের বিরুদ্ধে নিজেদের অধিকার আদায়ে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

সভায় অন্যান্য বক্তারা অবিলম্বে দ্রুত পুনর্বাসনের পাশাপাশি পল্লী রেশনিং চালু, ইজারা বাতিল করে হাওরে মাছ ধরার অধিকার নিশ্চিত করা, সকল প্রকার সুদের কিস্তি আদায় স্থগিত ও সুদ মওকুফের দাবি জানান।

ক্ষেতমজুর সমিতির প্রবীণ সদস্য জয়কৃষ্ণ সরকারের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সহ সাধারণ সম্পাদক অর্ণব সরকার, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা কমিটির সভাপতি জালাল সুমন, সদস্য আব্দুল আউয়ালসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সিপিব সুনামগঞ্জ জেলার সভাপতি এনাম আহমেদ, সাবেক সভাপতি অধ্যাপক চিত্তরঞ্জন তালুকদার।

সমাবেশে বক্তারা গরিব মানুষের নামে বরাদ্দ লুটপাট বন্ধের দাবি জানান। সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বাজার প্রদক্ষিণ করে।

এছাড়া ক্ষেতমজুর সমিতির পক্ষ থেকে ৩০ জুলাই দিনব্যাপী ‘ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প্’ দুই শতাধিক অসহায় রোগীদের ব্যবস্থাপত্র ও কিছু ঔষধ দেওয়া হয়।

উপজেলার চামরদানি উচ্চ বিদ্যালয়ে এই ক্যাম্প পরিচালিত হয়। সেখানেও শতাধিক রোগীকে ব্যবস্থাপত্র ও ঔষধ দেওয়া হয়।

চিকিৎসা প্রদান করেন ডা. ফজলুর রহমান ও যুব ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় নেতা ডা. মুজাহিদুল হক রিপন।

এদিকে একই দিনে বিকালে নেত্রকোণা জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলায় বন্যার্ত অসহায় মানুষদের দ্রুত পুনর্বাসন, রেশনিং ব্যবস্থা চালু ও হাওরে অবাধে মাছ ধরার সুযোগের দাবিতে মাঘান বাজারে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মাঘান ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি আব্দুন নূর-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি অধ্যাপক ডা. ফজলুর রহমান, সহ-সাধারণ সম্পাদক অর্ণব সরকার, উপজেলা কমিটির সভাপতি আব্দুল মোমেন, ছাত্র ইউনিয়ন উপজেলা সভাপতি রফিকুল ইসলাম।

সমাবেশ শেষে গভীর রাত পর্যন্ত ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পে রোগী দেখেন ডা. ফজলুর রহমান ও ডা. মুজাহিদুল হক রিপন। এসময় রোগীদের কিছু ঔষধও বিরতণ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.