পিরোজপুরের জজের ব্যবহার ছিল ‘অত্যন্ত অশালীন ও রূঢ়’: আইনমন্ত্রী

পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য এ কে এম এ আউয়ালের জামিনের সময় জেলা ও দায়রা জজ মো. আব্দুল মান্নান ‘অত্যন্ত অশালীন ও রূঢ়’ব্যবহার করেছেন বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

দুর্নীতির মামলায় পিরোজপুরের সাবেক সংসদ সদস্য আউয়াল ও তার স্ত্রী লায়লা পারভীনের জামিনের আবেদন নাকচ করে মঙ্গলবার সকালে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশে দিয়েছিলেন জেলা জজ আব্দুল মান্নান।

এরপর পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আউয়ালের সমর্থকদের বিক্ষোভ-ভাংচুরের প্রেক্ষাপটে জজ আব্দুল মান্নানকে বদলি করা হয়।

বিকালে পিরোজপুরের ভারপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজের দায়িত্ব নিয়ে নাহিদ নাসরিন আওয়ামী লীগ নেতা আউয়াল ও তার স্ত্রীকে জামিন দেন।

বুধবার (৪ মার্চ) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, পিরোজপুরে জেলা জজের কাছে পিরোজপুর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং তার স্ত্রীর দুর্নীতির মামলার জন্য জামিন চাইতে গিয়েছিলেন। জামিন চাওয়ার সময় তার আইনজীবী এবং বারের সকল আইনজীবীর থেকে আমরা যে তথ্যাদি পেয়েছি, জেলা ও দায়রা জজ অত্যন্ত অশালীন এবং রূঢ় ব্যবহার করেন। সেই উদ্ভুত পরিস্থিতিতে এমন একটা অবস্থা দাঁড়ায়, যেখানে বারের সকলে আদালত বর্জন করার সিদ্ধান্ত নেয়।

আইনমন্ত্রী বলেন, এই অবস্থায় যখন এসব গণ্ডগোল চলছিল এবং রাস্তায় লোকজন বেরিয়ে গিয়েছিল, সেটাকে কন্ট্রোল করার জন্য তাকে (জজ) ওখান থেকে স্ট্যান্ড রিলিজ (তাৎক্ষণিক বদলি) করে আদেশ দেওয়া হয়, আইন মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবে।

গত ৩০ ডিসেম্বর আউয়াল ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনে ৩ টি মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সেসব মামলার জামিনে মঙ্গলবার দুপুরে তারা আবেদন করেন পিরোজপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.