পরীমনি ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টা: কে এই নাসির মাহমুদ?

চিত্রনায়িকা পরীমনিকে ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামী নাসির উদ্দিন মাহমুদ।

গত ৮ জুন উত্তরার কাছের বিরুলিয়ায় ঢাকা বোট ক্লাবে পরীমনিকে ধর্ষণের চেষ্টা চালিয়েছিলেন তিনি, এরকমই অভিযোগ পরীমনির পক্ষ থেকে করা হলে তাকেসহ পাঁচ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

এছাড়াও এ সময় তাকে মারধরও করা হয় বলে অভিযোগ পরীমনির।

এ ঘটনায় পরীমনি রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে নাসিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। সোমবার তিনি সাভার থানায় মামলা করেন।

এরপর বিকালে পুলিশ উত্তরার এক নম্বর সেক্টরের ১২ নম্বর সড়কের ১৩ নম্বর বাসায় অভিযান চালিয়ে নাসির মাহমুদ, তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ আরও তিন নারীকে গ্রেপ্তার করে।

এদিকে ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা পরীমনির করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আগামী ৮ জুলাইয়ের মধ্যে জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট (সিএমএম) আদালত এই আদেশ দেন।

কে এই নাসির? 

চিত্রনায়িকা পড়িমনিকে ‘ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা’ করা অভিযোগে অভিযুক্ত নাসির উদ্দিন মাহমুদ জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য।

আবাসন ব্যবসায়ী নাসিরকে জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বলে স্বীকার করেছেন দলটির চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

নাসির মাহমুদ ঢাকা বোট ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। ক্লাবটির কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি।

নিজের ফেইসবুক পাতায় নাসির মাহমুদের পরিচয় দেওয়া রয়েছে কুঞ্জ ডেভেলপারস লিমিটেডের চেয়ারম্যান এবং মাহমুদ বিল্ডার্স অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

কুঞ্জ ডেভেলপারসের ওয়েবসাইটে নাসিরের ছবিসহ একটি সংক্ষিপ্ত পরিচিতিও দেওয়া ছিল, যা সোমবার পরীমনির মামলা হওয়ার পর সরিয়ে ফেলা হয়। তবে ওয়েবক্যাশে এখনও তথ্যগুলো রয়েছে।

ওয়েবসাইটের তথ্যে বলা হয়েছে, ২০১৫ সাল থেকে তিন বছর উত্তরা ক্লাবের সভাপতি ছিলেন নাসির। বাংলাদেশ অ্যাসেসিয়েশন অব কন্সট্রাকশন ইন্ডাস্ট্রির (বিএসিআই) নির্বাহী কমিটিতেও ছিলেন এক সময়।

লায়ন্স ক্লাবে যুক্ত থাকার কথাও লিখেছেন নাসির। তিনি বলেছেন, ঢাকার প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগে খেলার অভিজ্ঞতাও তার রয়েছে।

ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, ১৯৮১-৮২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগে পড়ার সময় এস এম হল ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক হয়েছিলেন নাসির।

উল্লেখ্য, পরীমনিকে ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার হলেও নাসিরের বিরুদ্ধে আরও দুটি মামলা হচ্ছে বলেও পুলিশ জানিয়েছে।

নাসিরের বিরুদ্ধে মাদকের একটি মামলা হবে। এছাড়া আটক তিন নারী যদি রাজি হন তবে, তাদের যৌন কাজে বাধ্য করার অভিযোগেও আরেকটি মামলা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.