পরীমনিসহ অভিনেত্রী-মডেলদের নিয়ে প্রকাশিত খবরে নারীর মর্যাদা ক্ষুণ্ণ হচ্ছে

পরীমনিসহ অভিনেত্রী-মডেলদের নিয়ে প্রকাশিত কোনো কোনো সংবাদ মাধ্যমের খবরে নারীর মর্যাদা ক্ষুণ্ণ হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে মহিলা পরিষদ৷

সংগঠনটি মনে করে, কিছু ক্ষেত্রে বিচারের আগেই নারীদের দোষী করার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে৷

মহিলা পরিষদ গ্রেপ্তার সহকর্মীদের বিষয়ে শিল্পী সমিতির ভূমিকা নিয়েও অসন্তোষ প্রকাশ করেছে৷

মহিলা পরিষদের এক বিবৃতিতে এসব কথা বলা হয়।

মহিলা পরিষদের বিবৃতিতে বলা হয়, “সাম্প্রতিক সময়ে আমরা লক্ষ্য করছি যে, কোনো নারী ঘটনার শিকার বা অভিযুক্ত যা-ই হোক না কেন, এমনভাবে সংবাদ প্রচার ও শব্দ প্রয়োগ করা হয়, যাতে নারীর আত্মমর্যাদা ক্ষুণ্ণ হয়, যা নারীর প্রতি পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রকাশ৷ যখন গণমাধ্যমকে জেন্ডার সংবেদনশীল করতে নারী আন্দোলন বিশেষ ভূমিকা রাখছে, গণমাধ্যমও নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বিভিন্ন সময়ে সহযোগী ভূমিকা রেখে চলেছে, সেই সময় দুর্ভাগ্যজনকভাবে কোনো কোনো গণমাধ্যমের ভূমিকা নারীর মানবাধিকারকে ক্ষুণ্ণ করছে৷”

বিবৃতিতে আরো বলা হয় “সংবাদ উপস্থাপন ও শব্দ প্রয়োগের মাধ্যমে পাঠক-দর্শকের মনোযোগ আকর্ষণ করার অপপ্রয়াস চালানো হচ্ছে, যা সুস্থ সাংবাদিকতার পরিপন্থি৷” ব্যক্তি নারীর মর্যাদা ক্ষুণ্ণ ও মানবাধিকার লঙ্ঘন করে- এমন সংবাদ পরিবেশন থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন মহিলা পরিষদ নেতারা৷

তারা বলেন, “বিচারের আগেই নারীদের দোষী করে দেওয়ার প্রবণতাও দেখা যাচ্ছে, যা প্রত্যাশিত নয়৷ বর্তমানে এই প্রবণতা নিষ্ঠুর ও ভয়ংকর রূপ নিয়েছে৷ এই সকল ঘটনার হোতাদের চিহ্নিত করে শাস্তির ব্যবস্থা না করলে এর পুনরাবৃত্তি ঘটবে৷”

উল্লেখ্য, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী গত জুলাই মাসে মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা ও মরিয়ম মৌ ও ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে গ্রেপ্তার করে৷ পরে র‍্যাবের অভিযানে গ্রেপ্তার হন চিত্রনায়িকা পরীমনি৷ তাদের বাড়িতে মদ, মাদকদ্রব্য, জুয়া খেলার সামগ্রী পাওয়ার কথা জানানো হয়৷ নারীদের গ্রেপ্তার অভিযান নিয়ে তুমুল আলোচনার মধ্যে গণমাধ্যমে একের পর এক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হচ্ছে৷

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.