নেত্রকোনায় উদীচী কার্যালয়ে বোমা হামলার ১৬ বছর

ষোল বছর আগে, ২০০৫ সালের ৮ ডিসেম্বর উদীচী নেত্রকোনা জেলা সংসদের কার্যালয়ের সামনে ধর্মীয় উগ্রগোষ্ঠীর বোমা হামলায় ৮ জন নিহত হয়। প্রতি বছর উদীচী যথাযথ মর্যাদায় দেশব্যাপী দিবসটি পালন করা হয়ে থাকে। তারই ধারাবাহিকতায় এ বছরের ৮ ডিসেম্বরও উদীচী চত্বরে হয় প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

শহীদ স্মরণে নির্মিত অস্থায়ী বেদীতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পনের পর এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর উদীচী কেন্দ্রীয় সঙ্গীত বিভাগ গণসঙ্গীত পরিবেশন করে। তারপর হয় আলোচনা পর্ব।

আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কেন্দ্রীয় সংসদের সহ- সভাপতি প্রবীর সরদার। বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ জহির চন্দন, উদীচীর সাধারণ সম্পাদক জামসেদ আনোয়ার তপন, সহ- সাধারণ সম্পাদক ইকবালুল হক খান, কেন্দ্রীয় সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য বিজন রায়, উদীচী ঢাকা মহানগরের সভাপতি নিবাস দে, নেত্রকোনা জেলা সংসদের সংগঠক জয়শ্রী বীথি। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সহ- সাধারণ সম্পাদক অমিত রঞ্জন দে।

বক্তারা বলেন, শাসক শ্রেণি লুটপাট ও শোষণের সার্থে রাজনীতিতে ধর্মের ব্যবহার করছে এবং ধর্মীয় উগ্রগোষ্ঠীকে পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে। উদীচী মানুষের পক্ষে সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড করে বলে বার বার এমন হামলার শিকার হচ্ছে।

আলোচনা পর্বের পরে একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন সোনিয়া আকতার ও তৌহিদা স্বাধীন। আবৃত্তি করেন উদীচীর সহ- সভাপতি বেলায়েত হোসেন, উদীচী আবৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান সুমন এবং কেন্দ্রীয় সদস্য শিখা সেন গুপ্তা। নৃত্য পরিবেশন করেন উদীচীর কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য বেনজীর আহমদ লিয়া।

কেন্দ্রীয় সংসদের পাশাপাশি উদীচীর বিভিন্ন জেলা ও শাখাও দিবসটি পালন করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.