খেটে খাওয়া মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে: সিপিবি

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি: জনগণের ভোটাধিকার, কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় দখলমুক্ত, সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ, জাতীয় ন্যূনতম মজুরী ১৬ হাজার টাকা নির্ধারণ, ভূমিহীন ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুরদের রেশন কার্ড, ধর্মীয় সংখ্যালঘু, আদিবাসী প্রমূখের ওপর জুলুম-অত্যাচার বন্ধ, ভারতের সাথে জাতীয় স্বার্থবিরোধী অসমচুক্তি বাতিলসহ ১৭ দফা দাবিতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পাটি (সিপিবি)’র ডাকে দেশব্যাপী পদযাত্রা কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নারায়ণগঞ্জ জেলার বিভিন্ন থানায় পদযাত্রা চলছে। শনিবার (২৩ নভেম্বর) ও রোববার (২৪ নভেম্বর) ২ দিনব্যাপী আড়াইহাজার থানার বিভিন্ন অঞ্চলে পদযাত্রা অব্যাহত আছে।

শনিবার (২৩ নভেম্বর) বিকাল ৩টায় নতুন বান্টি বাজার থেকে এই পদযাত্রা শুরু হয়ে গির্দা, কালীবাড়ী, কুমারপাড়া, খানপাড়ায় পথে পথে পথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

রোববার (২৪ নভেম্বর) রাঘবদী, পাঁচরুখি ও বান্টি বাজারে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ২দিন ব্যাপী এই পদযাত্রায় ১২ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করা হয়।

পথসভাগুলোতে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি আড়াইহাজার থানা কমিটির সভাপতি কমরেড লোকনাথ বর্মন। বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি কমরেড হাফিজুল ইসলাম, জেলা কমিটির সদস্য কমরেড নূরুল ইসলাম, কমরেড এম. এ. শাহীন, কমরেড দিন দুনিয়া ও আড়াইহাজার থানা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড মিন্টু বর্মন।

সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, জনগণের ভোটাধিকার নেই। কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশব্যাপী মৃত্যুর মিছিল চলছে। ভারতের সাথে জাতীয় স্বার্থবিরোধী অসম চুক্তি করা হচ্ছে। শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরী দেয়া হচ্ছে না। কথা বলার অধিকার নেই। সভা সমাবেশে হামলা করা হচ্ছে। দেশ আজ এক ভয়বহ সংকটে নিমজ্জিত।

নেতৃবৃন্দ বলেন, আর্থিক বৈষম্য ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে খেটে খাওয়া মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। সরকারের ছত্রছায়ায় বাজার সিন্ডিকেট, পিঁয়াজের কৃত্রিম সংকট তৈরী করে জনগণের পকেট থেকে ৭ হাজার কোটি টাকা লুট করেছে। চাল, ডাল, তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বাড়িয়ে চলেছে। এভাবে দেশ চলতে পারে না। তাই ধনীক শ্রেণীর এই রাজনৈতিক দলগুলোকে প্রতিহত করে মেহনতী মানুষের পক্ষে বাম ও প্রগতিশীল বিকল্প একটি রাজনৈতিক শক্তিকে রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করতে হবে। কমিউনিস্ট পার্টির দেশব্যাপী এই পদযাত্রায় আমরা জনগণকে সেই আহ্বান জানাচ্ছি।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, আড়াইহাজারের সোনাখালী খালের পানি দূষিত হয়ে অত্র এলাকার প্রকৃতি ও পরিবেশ ধ্বংস করছে। যাদের কারণে সোনাখালী খালের পানি দূষিত হচ্ছে সরকার তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। কমিউনিস্ট পার্টির পক্ষ থেকে আমরা এই খাল রক্ষায় বহুবার আন্দোলন করেছি। তারপরেও অপরিকল্পিত কিছু শিল্প কলকারখানার কারণে পরিবেশ বিপর্যয় অব্যাহত আছে। সোনাখালী খাল রক্ষায় অত্র অঞ্চলের জনগণকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.