দেশে বিবিসি, সিএনএনসহ সব বিদেশি চ্যানেল সম্প্রচার বন্ধ

বাংলাদেশে বিজ্ঞাপনসহ অনুষ্ঠান প্রচার করে- এমন সব বিদেশি চ্যানেলের সম্প্রচার বাংলাদেশে বন্ধ করে দিয়েছে কেবল অপারেটররা।

এর ফলে বিবিসি, সিএনএনসহ আন্তর্জাতিক নিউজ চ্যানেল এবং ভারতীয় চ্যানেলসহ সব বিদেশি চ্যানেলের সম্প্রচার বাংলাদেশে বন্ধ রয়েছে।

১ অক্টোবর থেকে দেশে বিজ্ঞাপনসহ কোনো বিদেশি চ্যানেলের সম্প্রচার করা যাবে না, বাংলাদেশের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় থেকে এমন নির্দেশনা আগেই দিয়েছিল। ফলে এই দিন থেকেই বাংলাদেশ থেকে কোনো বিদেশে চ্যানেল দেখা যাচ্ছে না। কেবল অপারেটর, ডিটিএইচ সংযোগের মাধ্যমে বিদেশি চ্যানেলের সম্প্রচার বন্ধ রয়েছে।

সরকার বলছে যাদের মাধ্যমে দর্শক বিদেশি চ্যানেল দেখতে পাচ্ছেন, তারাই ওই বিদেশি চ্যানেলগুলো বিজ্ঞাপন ছাড়া সম্প্রচার করবে। বিজ্ঞাপন ছাড়া বিদেশি চ্যানেল সম্প্রচারের ক্ষেত্রে সরকারের কিছু করার নেই।

উল্লেখ্য, ছয় মাস আগে এপ্রিলে একবার সরকার এই নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে চেয়েছিল। কিন্তু সেটা পিছিয়ে ১ অক্টোবর করা হয়।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ গণমাধ্যমে বলেছেন, বাংলাদেশের আইনে রয়েছে বিদেশি বিজ্ঞাপন প্রচার করা যাবে না। ভারত, পাকিস্তান, ব্রিটেনসহ বহু দেশে এই আইন রয়েছেন বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এখন আইন মেনে বিদেশি চ্যানেলের সম্প্রচার করতে হলে পরিবশেক এবং চ্যানেলের কর্তৃপক্ষেই বিকল্প পথ খুঁজে বের করতে হবে, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী বলেন, এক্ষেত্রে সরকারের কিছু করার নেই।

কেবল অপারেটর এসোসিয়েশনের হিসেব অনুযায়ী, বাংলাদেশে বর্তমানে ১০০টিরও বেশি চ্যানেল রয়েছে যার দর্শক সংখ্যা প্রায় দেড় কোটি।

একটি দেশে ক্লিন ফিড বা বিজ্ঞাপন ছাড়া বিদেশি চ্যানেলের সম্প্রচার হবে এটাই নতুন কোনো ধারণা নয়। বাংলাদেশের পার্শ্ববর্তী ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, নেপালেও ক্লিন ফিড বা বিজ্ঞাপন ছাড়া বিদেশি চ্যানেলের সম্প্রচার হয়। তা হলে প্রশ্নে উঠেছে বাংলাদেশে সমস্যা কোথায়?

দুই ভাবে এটি হতে পারে। যেসব বিদেশি চ্যানেল বাংলাদেশে সম্প্রচার হয় সেসব চ্যানেল কাস্টমাইজ করে অর্থাৎ বাংলাদেশে তাদের চ্যানেল বিজ্ঞাপনহীন করে ডাউনলিংক করার ব্যবস্থা করতে পারে। অথবা বাংলাদেশে যারা স্যাটেলাইট থেকে চ্যানেল ডাউনলিংক করেন তারা চ্যানেলে অনুষ্ঠানের ফাঁকে থাকা বিজ্ঞাপন বাদ দিতে পারেন।

কেবল অপারেটেরা বলছেন, চ্যানেলগুলো বাংলাদেশের জন্য আলাদা ফিড দেবে এটা অনেক ক্ষেত্রেই বাস্তবসম্মত নয়। এতে যদি ওই চ্যানেলের এ দেশে সম্প্রচারের ব্যাপক ভাবে আর্থিক লাভের সুযোগ না থাকে তাহলে সেটি তারা করবে না। এরপর থাকলে বাংলাদেশে যারা ডাউনলিংক করছে অর্থাৎ কেবল অপারেটর বা ডিটিএইচ সংযোগকারী।

বাংলাদেশ কেবল অপারেটরদের সংগঠনের সভাপতি এস এম আনোয়ার পারভেজ সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের (কেবল অপারেটর) অবস্থান হচ্ছে চ্যানেল ক্লিন ফিড করা আমাদের পক্ষে সম্ভব না। বাংলাদেশে লাইসেন্সধারী কেবল অপারেটরের সংখ্যা সাড়ে তিন হাজারের বেশি। সব মিলিয়ে এই চার-সাড়ে চার হাজারের মতো। বেশির ভাগ অপারেটরদের সংযোগ সংখ্যা ১৫০-২০০ বা ২৫০-৩০০। ফলে চ্যানেল ক্লিন ফিড করে চালানো কেবল অপারেটরদের পক্ষে সম্ভব নয়। তিনি বলেন, প্রায় ৫ লাখ মানুষ এ খাতে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে জড়িত। সরকারকে এই দিকটাও বিবেচনা করা দরকার। তিনি বলেন, আমাদের দিক থেকে যেহেতু করার কিছু নেই, তাই সরকার পরবর্তীতে যেটা করতে বলবে, সেটাই করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.