ড্রাগন শ্রমিকদের আন্দোলন: ত্রিপক্ষীয় চুক্তি বাস্তবায়নের দাবিতে অবস্থান চলছে

ড্রাগন সোয়েটার লিমিটেড কারখানার শ্রমিকদের আইননানুগ পাওনা পরিশোধের দাবিতে আজ (১১ নভেম্বর) বুধবার শ্রম ভবনের সামনে দ্বিতীয় দিনের মতো অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে শ্রমিকরা।

অবস্থান কর্মসূচিতে কারখানার বিভিন্ন পর্যায়ের শ্রমিক-কর্মচারীরা বক্তব্য রাখেন। তারা বলেন, মালিকপক্ষ চুক্তি ভঙ্গের প্রেক্ষিতে উপস্থিত শ্রম পরিদর্শকগণ চুক্তি প্রতিপালনের জন্য তাদের বার বার চুক্তি অনুসারে পাওনা পরিশোধের জন্য বললেও তারা পাওনা পরিশোধে অস্বীকৃতি জানায়।

বক্তারা আরও বলেন, মহামারি পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে শ্রমিকদের আইননানুগ পাওনা বঞ্চিত করে ড্রাগন কারখানার মালিকপক্ষ শ্রমিকদের চাকরিচ্যুত করে। পরবর্তীতে দীর্ঘ সাত মাস লাগাতার আন্দোলন করার মধ্য দিয়ে গত ১২ অক্টোবর ২০২০, ত্রিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। নেতৃবৃন্দ বলেন, শ্রমিকরা আইননানুগ প্রাপ্য হতে অর্ধেকের বেশি পাওনা ছেড়ে দিয়ে সমঝোতা চুক্তিতে সম্মত হয়েছিল। বিরাট আর্থিক ক্ষতি মেনে নিয়ে শ্রমিকরা যে চুক্তি করেছে তা ভঙ্গ করে মালিকপক্ষ প্রমাণ করেছে তারা দেশের আইন এবং শ্রমিকের অধিকারের প্রতি ন্যূনতম শ্রদ্ধাশীল নয়। তারা অবিলম্বে চুক্তি প্রতিপালনে মালিককে বাধ্য করতে সরকারের প্রতি জোর দাবি জানান।

শ্রমিক নেতৃবৃন্দ জানান, দীর্ঘ ৭ মাসের বেশি সময় ধরে জুলুমের শিকার শ্রমিকদের সাথে চুক্তি ভঙ্গের প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে আইননানুগ পাওনা পরিশোধের দাবিতে ঢাকার বিজয়নগরে অবস্থিত শ্রম ভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি চলবে। পাওনা আদায় না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শ্রমিকরা ভবনের সামনে অবস্থান করবে।

উল্লেখ্য, ত্রিপক্ষীয় চুক্তি অনুসারে গত ৭ নভেম্বর ২০২০, শনিবার ড্রাগন গ্রুপের পাঁচ শতাধিক শ্রমিকের আইননানুগ পাওনা পরিশোধের কথা থাকলেও চুক্তি ভঙ্গ করে মালিকপক্ষ। সেদিন শ্রমিকরা পাওনা টাকার প্রথম কিস্তি আনতে কারখানায় গেলে চুক্তি অনুসারে শ্রমিকদের সার্ভিস বেনিফিট, অর্জিত ছুটি ও প্রভিডেন্ট ফান্ড পরিশোধে মালিকপক্ষ অস্বীকৃতি জানায়।