চা-বাগানে বহিরাগতদের হামলার ঘটনায় ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের ক্ষোভ

ডানকান ব্রাদার্সের পরিচালনাধীন মৌলভীবাজারের আলীনগর চা-বাগানের ফাঁড়ি সুনছড়া চা-বাগানে চা-শ্রমিক সংঘের যুগ্ম-আহবায়ক হরিনারায়ন হাজরা ও চা-শ্রমিক যুব-সংঘের সাধারণ সম্পাদক স্বপন নায়েকের উপর বহিরাগত সন্ত্রাসীদের হামলায় তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি হাবিবুল্লা বাচ্চু ও সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী আশিকুল আলম এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেন গত ২৮ মে রাতে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র হাতে নিয়ে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা দফায় দফায় হামলা চালিয়ে হরিনারায়ন হাজরার বাড়ি ভাংচুর এবং ৭ টি গরু, ৫ টি ছাগল, দোকানের ক্যাশ ও একটি দানবাক্স লুট করে নিয়ে যায়। নেতৃবৃন্দ বলেন বাগান কর্তৃপক্ষের মদদ ব্যতীত এত বড় ঘটনা ঘটতে পারতো না। নির্যাতিতদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের ও চাকরী থেকে বরখাস্ত করার মধ্য দিয়েই তা স্পষ্ট হয়।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, বাগান কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন অনিয়ম, চা পাতা চুরি, ছায়াবৃক্ষ চুরি, শ্রমিকদের বিভিন্ন অধিকার নিয়ে কথা বলার কারণে হরিনারায়ন হাজরা, স্বপন নায়েকসহ কয়েকজনের উপর স্বার্থান্বেষীমহল রূষ্ট ছিলেন। এর আগেও বিভিন্ন সময় চার্জশীট, কাজ বন্ধ রাখাসহ বিভিন্নভাবে হরিনারায়ন হাজরা ও তার ভাইদের বাগান কর্তৃপক্ষ নাজেহাল করেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন বাঁশখালীতে যেমন আন্দোলনরত শ্রমিকের বুকে গুলি চালিয়ে হত্যা করা, আবার সেই শ্রমিকের নামেই মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়; তেমনই যেন সুনছড়া চা-বাগানে তার পুণরাবৃতি ঘটলো। চা-বাগানে যারা চা-শিল্প রক্ষায় ভূমিকা রেখেছেন তাদের উপরই হামলা, লুটপাট ও নির্যাতন করা হলো, আবার তাদেরকেই মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার ও চাকরী থেকে বরখাস্ত করা হলো। তাই আজকে চা-বাগান, রাবার বাগান, গার্মেন্টস, বিদ্যুত কেন্দ্রসহ সকল সেক্টরেই শ্রমিকদের উপর নির্যাতনের যে ভয়াবহ রূপ সামনে আসছে তাতে শ্রমিকশ্রেণির ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামের কর্তব্যটিও জীবন্তভাবে সামনে আসছে।

নেতৃবৃন্দ চা-শিল্প রক্ষা ও শিল্পের স্থিতিশীলতা বজায় রাখার স্বার্থে অবিলম্বে চা-বাগানের কাঁচা পাতা চুরি, ছায়াবৃক্ষ নিধন বন্ধ, শ্রমিকদের নামে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, বে-আইনী বরখাস্ত আদেশ প্রত্যাহার করে শ্রমিকদের কাজে পুনঃবহাল, বাড়িঘরে ভাংচুর, গবাদি পশু ও অর্থ লুটপাটের সাথে জড়িত বহিরাগত সন্ত্রাসী ও তাদের মদদদাতাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি বিধান এবং ক্ষতিগ্রস্থ শ্রমিকদের যথাযথ ক্ষতিপুরণ এবং লুটপাটকৃত গবাদি পশু ও অর্থ উদ্ধারের দাবি জানান।

উল্লেখ্য, স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, হরিনারায়ন হাজরা ও স্বপন নায়েক বাগানের কাঁচা পাতা চুরির সংবাদ কর্তৃপক্ষকে জানানোর কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে সন্ত্রাসীরা এই হামলা চালায়। কর্তৃপক্ষ চোরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে তথ্যদাতার নাম চোরদেরকে জানিয়ে দেয়। সন্ত্রাসীদের হামলায় হরিনারায়ন হাজরা ও স্বপন নায়েকের মাথায় রক্তাক্ত জখম হয়। সন্ত্রাসীদের হামলায় মারাত্মক আহত শ্রমিকরা যাতে চিকিৎসা নিতে না পারে এজন্য সন্ত্রাসীরা বাগান থেকে বের হওয়ার রাস্তায় সশস্ত্র পাহারা বসায়।

আহত হরিনারায়ন হাজরা ও স্বপন নায়েককে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্ত্তি করা হয়। হাসপাতালে হরিনারায়ন হাজরার মাথায় ৬ টি এবং স্বপন নায়েকের মাথায় ১ টি সেলাই লাগে। চিকিৎসাধীন অবস্থায়ও সন্ত্রাসীদের নানারকম হুমকিতে হাসপাতালে চিকিৎসা অসম্পূর্ণ রেখেই হরিনারায়ন হাজরা ও স্বপন নায়েককে চলে আসতে হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.