চলন্ত ট্রেনে ডাকাতি ও দুই যাত্রী নিহতের ঘটনায় আটক ৫

ঢাকা থেকে জামালপুরগামী একটি ট্রেনে ডাকাতি করার সময় ট্রেনটির ছাদে থাকা দুজন ব্যক্তি নিহতের ঘটনায় ডাকাত দলের পাঁচ জন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

র‍্যাব বলছে, গত বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) একটি চলন্ত ট্রেনে ডাকাতি ও হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত অভিযোগে ‘সংঘবদ্ধ চক্রের’ পাঁচ জন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে তারা।

র‍্যাব আরও বলছে, নিহত দুজন ডাকাতদের বাধা দিতে গিয়ে অস্ত্রের আঘাতে প্রাণ হারান।

গ্রেপ্তাররা হল- নগরীর শিকারী কান্দা এলাকার আশরাফুল ইসলাম স্বাধীন (২৬), বাঘমারা এলাকার মঞ্জুর মিয়ার ছেলে মাকসুদুর হক রিশাদ (২৮), সাব্বির খানের ছেলে মো. হাসান (২২), মৃত আশরাফ আলীর ছেলে রুবেল মিয়া (৩১) ও সাব্বির খানের ছেলে মোহাম্মদ (২৫)।

রোববার ময়মনসিংহে র‍্যাবের কার্যালয়ে আজ এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে বলা হয়, আগের রাতে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ঘটনার পরদিন গত শুক্রবার রেলওয়ে পুলিশের জামালপুর থানার উপপরিদর্শক সোহেল রানা বিবিসিকে বলেছিলেন, রাতের ট্রেনে ডাকাতির খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত অবস্থায় তিনজনকে উদ্ধার করেছিল। পরে তাদের জামালপুর সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন।

র‍্যাব তাদের রবিবারের সংবাদ ব্রিফিংয়ে বলেছে, আটককৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে যে, ট্রেনে ডাকাতির উদ্দেশ্যেই ঢাকার কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে চারজন, টঙ্গি স্টেশন থেকে তিন জন এবং পরে ফাতেমানগর থেকে তাদের সঙ্গে আরো দুইজন যোগ দেয়।

তারা একত্রিত হয়ে ট্রেনের ইঞ্জিন বগি থেকে লুটপাট শুরু করে।

এক পর্যায়ে তারা ছাদে থাকা “নাহিদ মিয়া এবং সাগরের কাছে আসে তখন তারা বাধা দেয়ার চেষ্টা করে। সেখানে একটা ধস্তাধস্তি হয়, সেই সময় এই ডাকাত দল অস্ত্র দিয়ে তাদের মাথায় আঘাত করে। আঘাত করার ফলে তারা ট্রেনের ছাদে লুটিয়ে পড়েন”, সংবাদ সম্মেলনে বলছিলেন র‍্যাব-১৪-এর অধিনায়ক উইং কমাণ্ডার রোকনুজ্জামান।

পরে ট্রেনটি ময়মনসিংহ স্টেশনের কাছাকাছি এলে সিগনালের কারণে গতিয়ে কমিয়ে দিলে তারা ট্রেন থেকে নেমে চলে যায়, সংবাদ সম্মেলনে বলছে র‍্যাব-১৪।

উইং কমাণ্ডার রোকনুজ্জামান বলছেন, অভিযুক্তরা একটি “সংঘবদ্ধ চক্র”।

র‍্যাব জানাচ্ছে যাদেরকে আটক করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে আর বাকিদের ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে।

গ্রেপ্তারদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.