চট্টগ্রামে প্রবীণ কমিউনিস্টদের সম্মাননা প্রদান

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) চট্টগ্রাম জেলা শাখার উদ্যোগে প্রবীণ কমিউনিস্টদের সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।

শুক্রবার (২০ মে) বিকেলে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল খালেক মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ৩৩ জন প্রবীণ কমিউনিস্টকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

তাদের ফুল, ক্রেস্ট ও চাদর দিয়ে সম্মাননা জানান সিপিবি নেতারা। অনুষ্ঠানের শুরুতে সিপিবির সংস্কৃতি শাখার আয়োজনে শিল্পীরা গণসঙ্গীত পরিবেশন করেন।

সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে সিপিবির কেন্দ্রীয় সভাপতি মোহাম্মদ শাহ আলম বলেন, ‘আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, যুদ্ধাপরাধীদের দল জামায়াত- এরা দেশের মাত্র পাঁচ ভাগ মানুষের প্রতিনিধিত্ব করে। লুটেরা, নব্য ধনী, মুক্তবাজার সিন্ডিকেট এদের প্রতিনিধিত্ব করে এই দলগুলো। অথচ তারা পার্লামেন্ট দখল করে বসে আছে। আমরা কমিউনিস্টরা দেশের বাকি ৯৫ ভাগ মানুষের প্রতিনিধিত্ব করি। আমরা পার্লামেন্টে নেই। কিন্তু  পাঁচ ভাগের প্রতিনিধিদের হটিয়ে এবার আমাদের পার্লামেন্টে যেতে হবে। মানুষের মুক্তির জন্য, দেশকে মুক্ত করার জন্য বাম প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক শক্তিকে রাষ্ট্রক্ষমতায় নিতে হবে।’

কমরেড শাহ আলম আরও বলেন, ‘বিএনপি জাতীয় সরকারের কথা বলছে। ছোট দল যারা নির্বাচনে কম ভোট পায়, যারা সংসদে যেতে পারে না, তাদেরও জাতীয় সরকারে পদ দেয়ার কথা বলছে। আমরা বলতে চাই, কিসের জাতীয় সরকার, কাদের জন্য জাতীয় সরকার, কোন শ্রেণীর জন্য জাতীয় সরকার? আওয়ামী লীগ-বিএনপির গুঁতাগুঁতি সামলানোর জাতীয় সরকার আমরা চাই না। আমরা এই ফাঁদে পা দেব না। কোনো ধরনের জাতীয় সরকার, উপজাতীয় সরকারে আমরা ঢুকব না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা দেশের ৯৫ ভাগ মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম করছি। আমরা দুঃশাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করছি। আমরা ভোট ও ভাতের জন্য লড়াই করছি। আমরা ব্যবস্থা বদলের সংগ্রাম করছি। লড়াই-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আমরা মানুষের সমর্থন নিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতায় যেতে চাই।’

চট্টগ্রাম জেলা সিপিবির সভাপতি অধ্যাপক অশোক সাহার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, সিপিবির কেন্দ্রীয় সহকারী সাধারণ সম্পাদক মিহির ঘোষ, কেন্দ্রীয় সদস্য মৃণাল চৌধুরী।

শোক প্রস্তাব পাঠ করেন দক্ষিণ জেলা সিপিবির সভাপতি কানাইলাল দাশ। সম্মাননাপ্রাপ্ত কমিউনিস্টদের পক্ষ থেকে আহসানউল্লাহ চৌধুরী, আব্দুল নবী, এস এম নজরুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন।

কমরেড মিহির ঘোষ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ষড়যন্ত্র করে নাকি সরকারকে ক্ষমতা থেকে নামানোর চেষ্টা চলছে। বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে সিপিবির নামটিও তিনি উচ্চারণ করেছেন। আমরা স্পষ্ট বলতে চাই, সিপিবি ষড়যন্ত্রের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। সিপিবি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়া দল। সিপিবি সবসময় মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে, স্বাধীনতার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র রুখে দাঁড়িয়েছে। সিপিবি লুটেরাদের পাহারাদারদের বিরুদ্ধে লড়াই-সংগ্রাম করছে। তবে এক লুটেরাদের পাহারাদারকে হটিয়ে আরেক লুটেরাদের পাহারাদারকে ক্ষমতায় আনার লড়াইয়ে সিপিবি নেই। আমরা বামশক্তিকে ক্ষমতায় নিতে চাই।’

এর আগে সকালে নগরীর হাজারী লেইনে পার্টির কার্যালয়ে সিপিবি চট্টগ্রাম জেলা কমিটির বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। পার্টির জেলা কমিটির সভাপতি অশোক সাহার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ শাহ আলম, সহকারী সাধারণ সম্পাদক মিহির ঘোষে, সদস্য মৃণাল চৌধুরী, চন্দন দাশ, রথীন সেন, রেখা চৌধুরী, কোতোয়ালি থানার সভাপতি প্রদীপ ভট্টাচার্য, সীতাকুণ্ড থানার সাধারণ সম্পাদক মাহবুব চৌধুরী, আহমদ নূর, জামাল উদ্দিন,  অয়ন বড়ুয়া, ইমতিয়াজ সবুজ, সাদেক চৌধুরী, মো. মহসিন, দীলিপ দাশ, মৃদুল দে, অনিরুদ্ধ বড়ুয়া, ত্রিদিব রায়, আকবর মোহাম্মদ বাবর, মাহাবুবা জাহান রুমি, ইমরান চৌধুরী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.