ঘরে ঘরে চাকুরির কথা বলে সরকার প্রতারণা করেছে

ঘরে ঘরে চাকুরি দেওয়ার কথা বলে সরকার সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করেছেন বলে দাবি করেছেন পেশাজীবী সংগঠন বাংলাদেশ ন্যাশনাল সার্ভিস পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকার অঙ্গীকার করেছিলো ঘরে ঘরে চাকুরি দেবে। সেই অঙ্গীকার বাস্তবায়নের কথা বলে ঘটা করে ন্যাশনাল সার্ভিস প্রকল্প উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। অথচ সেই প্রকল্পের ২ লক্ষাধিক কর্মী আজ বেকার এবং মানবেতর জীবন যাপন করছে।

আজ (১১ জুন) শুক্রবার, সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ করে সরকারের ঘরে ঘরে চাকুরি প্রকল্পের বেকার হয়ে পরা কর্মীরা।

প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেটে ন্যাশনাল সার্ভিস প্রকল্পের কর্মীদের চাকুরি স্থায়ী করার কোন দিক নির্দেশনা না থাকার প্রতিবাদে এবং ২ লক্ষ ৩৮ হাজার কর্মীর চাকুরি স্থায়ী করার দাবিতে বিক্ষোভ এ বিক্ষোভ কর্মসুচি পালন করেছে পেশাজীবী সংগঠন বাংলাদেশ ন্যাশনাল সার্ভিস পরিষদ।

সমাবেশে আন্দোলনরত কর্মীদের দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে বক্তব্য রাখেন শ্রমিকনেতা জলি তালুকদার। তিনি বলেন, সরকার ঘরে ঘরে চাকুরির কথা বলে আদতে ঘরে ঘরে প্রতারণা করেছে। তিনি বলেন বিভিন্ন মন্ত্রনালয়ে ৩ লক্ষের ওপরে শূন্য পদ রেখে ৬ লক্ষ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বিশাল ঘাটতি বাজেট মাকালফল তুল্য।

তিনি চলতি অর্থ বছরেই বেকার হয়ে পরা কর্মীদের স্থায়ীভাবে নিয়োগ দেয়ার দাবি জানান।

বাংলাদেশ ন্যাশনাল সার্ভিস পরিষদের সভাপতি আতিক হাসান রাজার সভাপতিত্বে সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন সাধারন সম্পাদক আপন খালিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক

শাহদত হোসেন, সহ-সভাপতি রাজিব হোসেন, এনামুল হক, শাহ পরান, সলিমুল্লাহ খান প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের ঘরে ঘরে চাকরি দেওয়ার নির্বাচনী অঙ্গীকার বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ২০১০ সালের ৬ মার্চ কুড়িগ্রামে ন্যাশনাল সার্ভিস প্রকল্পের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই কর্মসূচির আওতায় প্রত্যেক পরিবারের ১৮ থেকে ৩৫ বছর-বয়সী একজনকে চাকুরি দেয়ার কাজ শুরু হয়। যারা দুই বছর পরেই বেকার হয়ে পরেন।

বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে অবিলম্বে ন্যাশনাল সার্ভিস প্রকল্পের বেকার কর্মীদের স্থায়ী চাকুরি দেয়ার ঘোষণা সরকার না দিলে দেশব্যাপী আন্দোলনের কর্মসুচি গ্রহণ করার আল্টিমেটাম দেয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.