কুড়িগ্রামে নদী ভাঙনে দিশেহারা তিস্তা পাড়ের মানুষ

নদী ভাঙনে দিশেহারা হয়ে পরেছে তিস্তা পাড়ের মানুষ। ভাঙন প্রতিরোধ করে এ অবস্থা থেকে দ্রুত উত্তরণের আর্জি জানিয়েছেন তারা।

কুড়িগ্রামে তিস্তা নদীর ভাঙনে গত দেড় মাসে সেই জেলার রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়ালডাঙা ও বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের অর্ধ শতাধিক বাড়িঘর নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে বলে জানা গেছে।

সেখানকার জনপ্রতিনিধিরা বলছেন, তিস্তার ভাঙনে এই দুই ইউপির শত শত বিঘা আবাদি জমি, গাছপালা, পুকুর ও মসজিদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রতি বছর নতুন নতুন জায়গায় ভাঙন শুরু হওয়ায় বাড়িঘর, গাছপালা, আবাদি জমি ক্রমশ হারিয়ে যাচ্ছে। হুমকির মধ্যে রয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাট-বাজার ও মন্দির মসজিদ।

আজ (১৩ জুন) বিডিনিউজ টুয়েন্টি ফোর ডট কমের এক সংবাদ প্রতিবেদনে এসব খবর পরিবেশন করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমানে রাজারহাটের ঘরিয়ালডাঙ্গা ও বিদ্যানন্দ ইউনিয়নে তিস্তা নদীতে ৬ কিলোমিটার এলাকায় বিচ্ছিন্নভাবে ভাঙন শুরু হয়েছে। অস্থায়ীভাবে জিও ব্যাগ দিয়ে ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

উল্লেখ্য, ঘড়িয়ালডাঙার ইউনিয়নে তিস্তার ভাঙনে শত শত বিঘা আবাদি জমি ভেসে গেছে। ৪০টি পরিবার গৃহহীন হয়েছে। তাছাড়া গাছপালা, পুকুর ও মসজিদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের ২০টি পরিবার তিস্তার ভাঙনে গৃহহীন হয়েছে বলে চেয়ারম্যারন তাউউজুল ইসলাম জানান।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.