কাবুলে পাকিস্তানবিরোধী বিক্ষোভে ফাঁকা গুলি তালেবানের

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে পাকিস্তানবিরোধী বিক্ষোভ চলাকালীন সময়ে ফাঁকা গুলি ছুড়ে আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করেছে তালেবান।

কাবুলে অবস্থিত পাকিস্তান দূতাবাসের বাইরে আজ মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আসা ভিডিও ক্লিপে দেখা গেছে, মুর্হুমুহু গুলির শব্দে অনেক লোক দৌঁড়ে পালাচ্ছে।

এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়েছেন বলে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ৭০ জনের মতো বিক্ষোভকারী কাবুলের পাকিস্তান দূতাবাসের বাইরে জড়ো হন। বিক্ষোভকারীদের অধিকাংশই ছিলেন নারী।

বিক্ষোভে যোগ দেওয়া ব্যক্তিরা ব্যানার বহন করেন। এসব ব্যানারে পাকিস্তানবিরোধী কথা লেখা ছিল। বিক্ষোভকারীরা পাকিস্তানবিরোধী নানান স্লোগানও দেন।

আফগানিস্তানের বিভিন্ন বিষয়ে ইসলামাবাদের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ এনে পাকিস্তানবিরোধী বিক্ষোভ করেন তাঁরা।

বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দিতে একপর্যায়ে তালেবান সদস্যরা আকাশে ফাঁকা গুলি ছোড়েন।

আগেরদিন সোমবার নারীদের ছোট একটি দল উত্তরাঞ্চলীয় শহর মাজার-ই-শরিফে তাদের অধিকার রক্ষার দাবি জানিয়ে মিছিল করে।

এর আগে গত শুক্র ও শনিবার কাবুলের পথে নেমে বিক্ষোভ দেখিয়েছিল একদল নারী সাংবাদিক ও অধিকার আন্দোলন কর্মী। শনিবারের বিক্ষোভকারীরা প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের দিকে মিছিল করে যাওয়ার চেষ্টাকালে তালেবান কর্মকর্তা ও নিরাপত্তা রক্ষীরা তাদের বাধা দিলে বিশৃঙ্খলা শুরু হয়। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ নারীদের লক্ষ্য করে কাঁদুনে গ্যাস ও পেপার স্প্রে ছোড়ে তালেবান নিরাপত্তা রক্ষীরা।

সম্প্রতি কাবুল ও হেরাতে এ ধরনের বেশ কয়েকটি প্রতিবাদ দেখা গেছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

তালেবান এখনও সরকারের ঘোষণা দেয়নি, কিন্তু আফগানরা কাবুল, হেরাত ও মাজার-ই-শরিফে বিচ্ছিন্নভাবে ছোট ছোট বিক্ষোভ মিছিল করছে বলে খবর গণমাধ্যমের।

এদিকে আফগানিস্তানে অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনে তালেবানকে পাকিস্তান সহায়তা করবে বলে জানিয়েছেন দেশটির সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া। গত শনিবার পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাবকে এসব কথা বলেন তিনি।

গত ১৫ আগস্ট কাবুল দখলের মধ্য দিয়ে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবান। তালেবানের ক্ষমতা দখলে পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে দেখা যায়।

উল্লেখ্য, ক্ষমতা দখলের পর তিন সপ্তাহের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও তালেবান এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক কোনো সরকার গঠন করতে পারেনি। তবে এ কাজে পাকিস্তান প্রকাশ্যে-অপ্রকাশ্যে সহায়তা দিচ্ছে বলে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.