করোনার হামলার মধ্যেই চলছে সরকারের মূল্য বৃদ্ধির হামলা -কমরেড সেলিম

করোনাভাইরাসের হামলায় মানুষের জীবন বিপন্ন হয়ে পড়েছে। করোনাকালে বেকারত্ব, দারিদ্র্য বেড়েছে। করোনাকালে একদিকে লুটপাট বেড়েছে, অপরদিকে শ্রমজীবী মানুষের ওপর হামলাও বেড়েছে। করোনার হামলার মধ্যেই চলছে সরকারের মূল্য বৃদ্ধির হামলা।

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম গতকাল (০৩ সেপ্টেম্বর) শুক্রবার বিকাল ৪টায় রাজধানীর পল্টন মোড়ে অনুষ্ঠিত সমাবেশে এসব কথা বলেন।

সমাবেশ থেকে অবিলম্বে এলপিজি সিলিন্ডার গ্যাসের বর্ধিত দাম প্রত্যাহার, সাশ্রয়ী দামে সিলিন্ডার গ্যাস সরবরাহ, নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম কমানোর তোলা হয়।

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির ডাকা দেশব্যাপি বিক্ষোভ-কর্মসূচির অংশ হিসেবে অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় এই বিক্ষোভ-কর্মসূচিতে আরো বক্তব্য রাখেন সিপিবির সহকারী সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ জহির চন্দন, প্রেসিডিয়াম সদস্য অনিরুদ্ধ দাশ অঞ্জন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. দিবালোক সিংহ, ঢাকা কমিটির সভাপতি মোসলেহ উদ্দিন। সমাবেশ পরিচালনা করেন সিপিবির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাদেকুর রহমান শামীম।

সমাবেশে কমরেড সেলিম তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, লুটেরা ব্যবসায়ীদের স্বার্থে সরকার এলপিজি সিলিন্ডার গ্যাসের দাম দফায় দফায় বৃদ্ধি করছে। স্বয়ং সরকারি সংস্থাই বলছে, বড় জাহাজে করে গ্যাস আনা গেলে সিলিন্ডার প্রতি

৩০০-৪০০ টাকা কম রাখা সম্ভব। আবারও বিইআরসি’র মাধ্যমে মূল্যবৃদ্ধির ঘোষণা দিয়ে, সরকার ব্যবসায়ীদের অনৈতিক ও অতিরিক্ত মুনাফার সুযোগ করে দিয়েছে। চাল, ভোজ্য তেল, চিনি, আদা-ময়দাসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বৃদ্ধিতে মানুষ যখন অতিষ্ঠ, তখন গ্যাসের দাম বৃদ্ধি জনজীবনকে আরো অতিষ্ঠ করে তুলেছে।

সমাবেশে সিপিবির সভাপতি আরো বলেন, বিদেশ থেকে গ্যাস আমদানি করা হচ্ছে লুটপাটের স্বার্থে। দেশকে আমদানিকৃত গ্যাসের ওপর নির্ভরশীল করে তোলা হয়েছে। সরকারি উদ্যোগে পর্যাপ্ত সিলিন্ডার গ্যাস উৎপাদন না করে একচেটিয়া ব্যবসার মাধ্যমে লুটেরাদের পকেট ভারী করার সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে। অথচ যথাযথভাবে গ্যাস উত্তোলন করে সরকারি উদ্যোগে সাশ্রয়ী দামে ঘরে ঘরে গ্যাস সরবরাহ করা সম্ভব। কিন্তু সরকার সেই পথে না হেঁটে, জনগণের স্বার্থের বিপরীত পথে হাঁটছে।

কমরেড সেলিম আরো বলেন, বিনা ভোটের সরকার জনগণের অধিকার হরণ করছে। জনগণের স্বার্থ নিয়ে সরকার ছিনিমিনি খেলছে। জনগণের প্রতি সরকারের কোনো দায় নেই, সরকারের দায় লুটেরাদের প্রতি। এই সরকারের কাছে দেশ, জনগণের স্বার্থ নিরাপদ নয়। গণবিরোধী সরকার হঠাতে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। বাম-গণতান্ত্রিক বিকল্প সরকার কায়েম করতে হবে।

সমাবেশের শুরুতে সিপিবির একটি বিক্ষোভ মিছিল ঢাকার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুরানা পল্টনে এসে সমাবেশে মিলিত হয়।

উল্লেখ্য, একই দাবিতে দেশের সকল জেলা-উপজেলা পর্যায়ে সিপিবি বিক্ষোভ-কর্মসূচি পালন করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.