করোনাভাইরাস: নমুনা পরীক্ষার সাথে কমেছে শনাক্ত সংখ্যা

দেশে নভেল করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার সাথে শনাক্তের সংখ্যাও কমেছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১১ হাজার ২৮৪টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে; করোনা সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ২৮৯ জন। একই সময়ে ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন আরো ১৩ জন।

আজ (৭ নভেম্বর) শনিবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে দেশের ১১৪টি পরীক্ষাগারের তথ্য তুলে ধরে বলা হয়, এ পর্যন্ত দেশে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা দাঁড়ালো ২৪ লাখ ২৯ হাজার ৮৪২টি। আর নতুন শনাক্তকৃতসহ দেশে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ৪ লাখ ১৮ হাজার ৭৬৪ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন মোট ৬ হাজার ৪৯ জন।

একদিনে আরো সুস্থ হয়ে উঠেছেন আরো ১ হাজার ৫৪১ জন রোগী। এ নিয়ে সুস্থ রোগীর মোট সংখ্যা বেড়ে ৩ লাখ ৩৬ হাজার ৫৬৮ জন হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১১ দশমিক ২৯। আর এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৭ দশমিক ২৩ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮০ দশমিক ৩৭ শতাংশ, আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৪৪ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ১৩ জনের মধ্যে পুরুষ ১১ জন এবং নারী দুজন। এ পর্যন্ত মৃত ৬ হাজার ৪৯ জনের মধ্যে পুরুষ ৪ হাজার ৬৫৭ জন; যা শতাংশের হিসাবে ৭৬ দশমিক ৯৯ শতাংশ এবং নারী রয়েছেন ১ হাজার ৩৯২ জন; যা শতাংশের হিসাবে ২৩ দশমিক ১১ শতাংশ।

মৃতদের বয়স বিভাজনে বলা হয়েছে, গেল ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে ২১ থেকে ৩০ বছর বয়সী রয়েছেন একজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের একজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের দুজন এবং ষাটোর্ধ্ব বয়সের মারা গেছেন ৯ জন।

গেল ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি মারা গেছেন ঢাকাতে, সাতজন। এছাড়াও রংপুরে তিনজন, সিলেটে দুজন এবং খুলনায় একজন মারা গেছেন। এদের সবাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। প্রথম মৃত্যুর খবর জানানো হয় ১৮ মার্চ।