কমিউনিস্ট সংগঠক সেরাজুল আনোয়ারের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত

“সেরাজুল আনোয়ার ছিলেন এক নিভৃতচারী অসাধারণ কমিউনিস্ট সংগঠক। রাজনৈতিক জীবনের বেশীরভাগ সময় তিনি আত্মগোপনে থেকে কাজ করেছেন। রাজনৈতিক প্রয়োজনে যেমন তিনি ব্যাপক মার্কসবাদী সাহিত্যের অনুবাদ করেছেন এবং পার্টি কর্মীদের মধ্যে তা নিয়মিত পাঠদানের মাধ্যমে পার্টিকে সমৃদ্ধ করেছেন।”

মার্কসবাদী সাহিত্যের অনুবাদক, লেখক ও কমিউনিস্ট বিপ্লবী কমরেড সেরাজুল আনোয়ারের স্মরণসভায় বক্তাগণ উপরোক্ত বক্তব্য প্রদান করেন।

গতকাল (০৮ জানুয়ারি) শুক্রবার বিকাল ৩:৩০টায় ঢাকার পরীবাগস্থ সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্রের ড. আসমা চৌধুরী মিলনায়তনে এ স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়

স্মরণসভা কমিটির আহ্বায়ক এ এস এম কামাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে সভায় আলোচনা করেন জাতীয় গণফ্রন্টের সমন্বয়ক টিপু বিশ্বাস, বাংলাদেশ লেখক শিবিরের সভাপতি কাজী ইকবাল, বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, সেরাজুল আনোয়ারের রাজনৈতিক সহযোদ্ধা পিনাকী দাস, একমাত্র কন্যা অনন্যা আনোয়ার অনুজা, পরিবারের সদস্য আব্দুল কাদের আজাদ, লাইলা আহমেদ প্রমুখ। সভা সঞ্চালনা করেন কমিটির সদস্য সচিব নজরুল ইসলাম।

সভার শুরুতে আজীবন বিপ্লবী এই কমরেডের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয় এবং বিবর্তন সংস্কৃতিক কেন্দ্রের পরিবেশনায় ‘কমিউনিস্ট ইন্টারন্যাশনাল’ সংগীতের মাধ্যমে সভা অনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়ে। সভায় সেরাজুল আনোয়ারের কর্মময় জীবন নিয়ে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কমিটির অন্যতম সদস্য মফিজুর রহমান লালটু।

বক্তাগণ বলেন, “সেরাজুল আনোয়ার এদেশের কমিউনিস্ট আন্দোলনে ব্যতিক্রমী একজন, যিনি এতগুলো বইয়ের অনুবাদ করেছেন। আর এই অবদান নিঃসন্দেহে এদেশের কমিউনিস্ট রাজনীতিতে গতির সঞ্চার করেছে। তাঁর এই অবদানকে আমাদের বারবার স্মরণ করতে হবে ভবিষ্যত প্রজন্মকে রাজনৈতিক পাঠ ও মানবমুক্তির সংগ্রামে উদ্ধুদ্ধ করার জন্য”।

উল্লেখ্য, গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে তাঁর গলায় ক্যান্সার ধরা পড়ে। কেমোথেরাপি নিচ্ছিলেন, চিকিৎসায় বেশ উন্নতিও হচ্ছিল। আকস্মিকভাবে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ১৬ নভেম্বর ২০২০ সন্ধ্যায় ঢাকার একটি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।