কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী প্রয়াত; সিপিবির শোক

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (মার্কসবাদী)-র সাধারণ সম্পাদক, বাম গণতান্ত্রিক জোটের কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের অন্যতম সদস্য কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী প্রয়াত হয়েছেন।

দেশের এই প্রবীন বামপন্থি নেতা গতকাল (০৬ জুলাই) মঙ্গলবার রাত রাত ১০টা ৫০ মিনিটে ঢাকার এক হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন।

তাঁর দল বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (মার্কসবাদী)-র পক্ষ থেকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

দেশের কমিউনিস্ট আন্দোলনের নেতা মুবিনুল হায়দারের মৃত্যুতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) গভীর শোক জানিয়েছে।

সিপিবি’র সভাপতি কমরেড মুজাাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোহম্মদ শাহ আলম এ দেশের বাম আন্দোলনে কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরীর অবদান কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন।

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান এক বিবৃতিতে বাসদ (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক, প্রবীন বামপন্থি নেতা কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

বিবৃতিতে খালেকুজ্জামান বলেন, নিজের বিশ্বাস অনুযায়ী কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী আমৃত্যু দেশের শ্রমিক-কৃষক-মেহনতি মানুষের মুক্তির সংগ্রামে নিবেদিত ছিলেন। তাঁর চিন্তার সাথে ভিন্নমত থাকলেও দেশের শ্রমজীবী মানুষের মুক্তির সংগ্রামে তাঁর অবদান আমরা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করি।

এছাড়াও প্রবীন এই বামপন্থি নেতার মৃত্যুতে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (মার্কসবাদী), বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, গণসংহতি আন্দোলন, বাম গণতান্ত্রিক জোটসহ অপরাপর বাম দলগুলো গভীর শোক জানিয়েছেন।

বাসদ (মার্কসবাদী) সূত্রে জানা যায়, কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরীর মরদেহ হাসপাতালের হিমাগারে রাখা হবে। আগামী পরশু ৮ জুলাই ২০২১, তাঁর শেষ ইচ্ছা অনুসারে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এনাটমি বিভাগে তাঁর দেহ হস্তান্তর করা হবে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের কাজে ব্যবহারের জন্য তিনি তাঁর দেহ দান করে গেছেন।

এর পূর্বে ওইদিন বেলা ১২টায় ঢাকা মেডিকেল চত্তরে শহীদ ডাঃ মিলনের সমাধিস্থলে বর্তমান কোভিড পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে সীমিত পরিসরে এক সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাঁর প্রতি শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে।

এছাড়াও বাসদ (মার্কসবাদী) তিনদিন ব্যাপি শোক পালনের কর্মসূচী নিয়েছে। সকল দলীয় কার্যালয়ে এই তিনদিন পার্টি পতাকা অর্ধনমিত থাকবে।

উল্লেখ্য, কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ ও ইউরোনাল ট্র্যাকে ক্যান্সার রোগে ভোগছিলেন। গত মার্চ মাসে গোসল করার সময় বাথরুমে পা পিছলে পড়ে গিয়ে তাঁর মাথায় আঘাত পান এবং মেরুদণ্ডের হাড় ভেঙে তাঁর হাত-পা অবস হয়ে যায়। তারপর থেকেই গত ৩/৪ মাস ধরে কয়েকবার হাসপাতালে ভর্তি করাতে হয়। সর্বশেষ নিউমোনিয়া প্রকট হলে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ৫ দিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

তাঁর মৃত্যুতে দেশের শ্রমজীবী মানুষ একজন নিষ্ঠাবান বামপন্থি রাজনৈতিক নেতাকে হারালো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.