‘আমাদের পণ্য, আমাদের নিয়ম’: ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ কমাবে রাশিয়া

ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ কমিয়ে দেওয়ার স্বপক্ষে বলতে গিয়ে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় জ্বালানি কোম্পানি গ্যাজপ্রম বলেছেন, “আমাদের পণ্য, আমাদের নিয়ম। যেসব নিয়মকানুন আমরা তৈরি করিনি সেসব মেনে আমরা কাজ করি না”।

উল্লেখ্য, ইউরোপের দেশগুলোর ৪০ শতাংশ গ্যাস সরবরাহ রাশিয়া থেকে হয়ে থাকে।

ইউরো অথবা ডলারের বদলে রাশিয়ান মুদ্রা রুবলে গ্যাসের মূল্য পরিশোধে অস্বীকৃতি জানানোর পর গ্যাজপ্রম বুলগেরিয়া, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস এবং পোল্যান্ডে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রেখেছে।

গ্যাসপ্রমের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, নর্ড স্ট্রিম ওয়ান নামে পরিচিত রাশিয়া থেকে জার্মানিতে গ্যাস সরবরাহের প্রধান পাইপলাইনে রক্ষণাবেক্ষণ কাজের কারণে উৎপাদন ২০ শতাংশ হ্রাস পাবে। যার ফলে বর্তমানের চেয়ে গ্যাস সরবরাহ অর্ধেক কমে যাবে।

এদিকে জার্মানি বলছে প্রযুক্তিগত এরকম কিছুই আসলে নেই।

বরং ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো অভিযোগ এই যে, জ্বালানিকে রাশিয়া অস্ত্র হিসেবে ব্যাবহার করছে।

রাশিয়া সরবরাহ আরও কমিয়ে দিলে আসছে শীতের আগে ইউরোপের দেশগুলোর পর্যাপ্ত গ্যাস মজুদ করা কঠিন হয়ে পড়বে। শীতে ইউরোপের দেশে গ্যাসের ব্যাবহার অনেক বেশি থাকে।

রাশিয়ার তরফ থেকে সরবরাহ কমিয়ে দেয়া অথবা পুরোপুরি বন্ধ করে দেবার হুমকি আসার পর ইউরোপিয়ান কমিশন তার সদস্য দেশগুলোকে গ্যাসের ব্যাবহার ১৫ শতাংশ কমিয়ে আনার আহবান জানিয়েছে।

ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ফন ডার লিয়েন বলেছেন, রাশিয়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে গ্যাস সরবরাহ একদম পুরোপুরি বন্ধ করে দেবে তার ‘সমূহ সম্ভাবনা’ রয়েছে।

এই বিষয়ে একটি পরিকল্পনা চূড়ান্ত করতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোর জ্বালানি মন্ত্রীরা আজ মঙ্গলবার ব্রাসেলস-এ মিলিত হবেন বলে কথা রয়েছে।

তবে বেশ কিছু সদস্য দেশ এই পরিকল্পনায় অংশগ্রহণ নাও করতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

ফেব্রুয়ারি মাসে রাশিয়া ইউক্রেনে আক্রমণ করার পর গ্যাসের পাইকারি মূল্য মারাত্মকভাবে বেড়ে গেছে। যার বড় ধরনের ধাক্কা সামলাতে হচ্ছে ভোক্তাদের।

সূত্র: বিবিসি বাংলা (অনলাইন)। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.