‘আদিবাসী’ শব্দ ব্যবহারে নিষধাজ্ঞা: উদীচীর ক্ষোভ, প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার দাবি

‘আদিবাসী’ শব্দটি ব্যবহার না করার জন্য নির্দেশনা দিয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ‘আদিবাসী’ শব্দটি ব্যবহার না করার বিষয়ে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

উল্লেখ্য, আগামী ০৯ আগস্ট আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস-এর অনুষ্ঠানমালায় অংশগ্রহণের সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, বিশেষজ্ঞ এবং সংবাদপত্রের সম্পাদকসহ সুশীল সমাজের ব্যক্তিদের ‘আদিবাসী’ শব্দটি ব্যবহার না করার জন্য নির্দেশনা দিয়ে তথ্য মন্ত্রণালয় এ প্রজ্ঞাপন জারি করে।

প্রজ্ঞাপন জারির প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী প্রজ্ঞাপনে উল্লেখিত বক্তব্য সঠিক নয় এবং সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক বলে অবিলম্বে প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে।

আজ (০২ আগস্ট), মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে উদীচীর সভাপতি অধ্যাপক বদিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক অমিত রঞ্জন দে বলেন, সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীতে বাংলাদেশে প্রাচীন কাল থেকে বসবাসরত সাঁওতাল, ওঁরাও, চাকমা, মারমা, মুন্ডা, ভীল, কোলসহ আরও অনেক জাতিকে ‘আদিবাসী’-এর পরিবর্তে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী হিসেবে পরিচয় দেয়া হলেও, তাদেরকে আদিবাসী হিসেবে পরিচয় দেয়া যাবে না তেমন কোন বিধিনিষেধ দেয়া হয়নি।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, কোন স্বাধীন গবেষক বা বিশেষজ্ঞ বা বুদ্ধিজীবী কোন জাতিকে কী হিসেবে পরিচিত করবেন বা উল্লেখ করবেন তা ঠিক করে দেয়ার অধিকারও সরকারের কোন মন্ত্রণালয় বা অধিদপ্তর রাখে না।

জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশেও জাতিসংঘ ঘোষিত ‘আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস’ সঠিক নামে এবং সঠিক চেতনায় পালন করা উচিত বলে মনে করে উদীচী।

এমতাবস্থায়, ‘আদিবাসী’ শব্দটি ব্যবহার না করার বিষয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের জারি করা প্রজ্ঞাপন অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানান অধ্যাপক বদিউর রহমান ও অমিত রঞ্জন দে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.